লাকসামে বিএনপির দু’গ্রুপের সংঘর্ষ আহত ১০

নিজস্ব প্রতিবেদক ● লাকসামে বিএনপির সাবেক সাংসদ কর্নেল আজিম গ্রুপ ও উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি চৈতী আবুল কালাম গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংর্ঘষে উভয় পক্ষের ১০ নেতাকর্মী গুরুতর আহত হয়েছে।

বুধবার সকালে লাকসাম পৌর হর্কাস মার্কেটে কর্ণেল আজিম অনুসারী উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহ আলম নিজ সংসারের কাঁচা বাজার করতে এলে চৈতী কালাম অনুসারী বিএনপি কর্মী আমান উল্যাহর হামলার শিকার হয়। এ খবর তাৎক্ষনিক এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে চর্তুদিক থেকে কর্নেল আজিম অনুসারীরা জড়ো হয়ে চৈতী কালাম গ্রুপ অনুসারী উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নুর হোসেন চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মাসুদ রানা বেলালকে খাদ্য গুদামের সামনে পেয়ে বেদম মারধর করে।

পরক্ষনে উভয় গ্রুপের নেতাকর্মীরা পুনরায় জোড়ো হয়ে পৌরশহরের ব্যাংকরোডে আজিম গ্রুপ ও ধান বাজার মোড়ে চৈতী কালাম গ্রুপের অনুসারীরা অবস্থান নেয়। হঠাৎ করে কালাম গ্রুপের সাবেক উপজেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মেজবাউল ইসলাম ফয়সাল নামে এক কর্মী আজিম গ্রুপের আস্তনায় ঢুকে পড়লে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে আজিম গ্রুপের কর্মীদের হাতে হামলার শিকার হয়।

দফায় দফায় সংর্ঘষকালে উভয় পক্ষের ১০ জন আহতদের মধ্যে আজিম গ্রুপের শাহআলম, বিল্লাল, মাকসুদ, আমানকে লাকসাম সদর হাসপাতালে এবং চৈতী কালাম গ্রুপের উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক হাজী নূর হোসেন চেয়ারম্যান ও মাসুদ রানা বেলালসহ আহত নেতাকর্মীদের স্থানীয় বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। উভয়পক্ষের দফায় দফায় সংর্ষষ ও শোডাউনে এলাকার পরিস্থিতি উত্তেজনায় ছড়িয়ে পড়লে খবর পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এ ব্যাপারে কর্নেল আজিম অনুসারী পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এস.এম তাজুল ইসলাম খোকন বলেন, চৈতী কালাম অনুসারীদের অতর্কিত হামলায় উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ আলম গুরুতর আহত হন। এর জেরধরে ওই বাজারে উপস্থিত জনতা সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করে। আমরা পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন রাখার চেষ্টা করছি।
এ বিষয়ে চৈতী কালাম অনুসারী একাধিক নেতাদের মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করেও কারো বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে লাকসাম থানা পুলিশের সূত্র জানায়, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয় বিএনপির দু’গ্রুপের নেতাকর্মীদের তাড়িয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনি। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত পৌরশহরে পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।