মুরাদনগরে সিএনজি চালককে বাসের নিচে ফেলে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক ● মুরাদনগরে শরিফুল ইসলাম নামের (২৮) এক সিএনজি অটো রিকশা চালককে মারধর করার পর বাস থেকে ফেলে দিয়ে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার গভীর রাতে জেলার মুরাদনগর উপজেলা সদরে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, নিহত শরিফুল ইসলাম মুরাদনগর গ্রামের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মালু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনার প্রতিবাদে সকাল থেকে ২ ঘন্টা ব্যাপী মুরাদনগর উপজেলা সদরে সিএনজি অটো রিকশার চালকরা সড়ক অবরোধ ও মানববন্ধন করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ বাস চালককে গ্রেফতার করেছে।

শনিবার সকালে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার রাতে জেলার মুরাদনগর উপজেলার কোম্পানীগঞ্জ থেকে একটি মিনিবাস হোমনা যাওয়ার পথে মুরাদনগর উপজেলা সদরে পৌঁছলে সেখানে থামানো শরিফুল ইসলামে সিএনজি অটো রিকশার সাথে বাসের ধাক্কা লাগে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সিএনজি অটো রিকশা চালক শরিফ বাস চালক ও হেলপারের সাথে ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে বাস চালক ও হেলপার মিলে ওই শরিফকে ধরে গাড়িতে উঠিয়ে নিয়ে যায়। পরে গাড়ির ভেতরে তাকে মারধর করে উপজেলার ঘোড়াশাল এলাকায় নিয়ে গাড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে চাকার নিচে ফেলে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই ওই সিএনজি চালক মারা যায়। খবর পেয়ে পুলিশ এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ওই বাসটি ধাওয়া করে চালকসহ জেলার হোমনা উপজেলার কাশিপুর থেকে আটক করে।

এ ঘটনায় মুরাদনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত ) হাবিবুর রহমান জানান, সিএনজি চালক ও বাস চালকের মাঝে বাকবিতন্ডার জের ধরে সিএনজি অটো রিকশা চালক শরিফকে তারা গাড়িতে উঠিয়ে নিয়ে চাকায় পিষ্ট করে হত্যা করে। এ ঘটনায় সিএনজি চালকের পিতা মালু মিয়া বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। বাসের চালককে গ্রেফতার করা হয়েছে।