মুরাদনগরের প্রধান খেলার মাঠে সামান্য বৃষ্টিতেই হাঁটুপানি

রাদনগর প্রতিনিধি ● একটু বৃষ্টিতেই মুরাদনগর উপজেলার ডিআর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে জমছে হাঁটুপানি। মাঠের পাশে অবস্থিত স্কুল ছাত্রবাসের ঠিক গা ঘেঁষে রয়েছে পানি নিষ্কাশনের জন্য একটি ড্রেন। ড্রেনটি মাঠ থেকে উচু হওয়ায় পানি নিষ্কাশন হচ্ছেনা।

মাত্র দু’কোদাল (এক হাত পরিমাণ জায়গা) মাটি কেটে দিলেই বিদ্যালয় চত্বরে জমে থাকা সিংহভাগ পানিই নিষ্কাশন হয় সহজে। কিন্তু এতটুকু উদ্যোগ নেওয়ার কেউ নেই ওই স্কুলে।

মাঠের এক পাশে রয়েছে মুরাদনগর মডেল সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয়। স্কুলটিতে ছোট ছোট কমলমতি শিশুদের খেলাধুলা করার মতো কোন স্থান ও এ এলাকার শিক্ষার্থীদের খেলার কোন মাঠ না থাকায় এ মাঠটিই হল উপজেলা সদরের একমাত্র খেলার মাঠ।

কিন্তু পানি নিষ্কাশনের এতটুকু উদ্যোগ নেওয়ার যেন কেউ নেই। স্কুলের মূল ক্যাম্পাসের পেছনে বিশাল খেলার মাঠ থাকলেও সেটি ক্যাম্পাসের বাইরে হওয়ায় ছাত্রদের তেমন কাজে লাগে না। ক্যাম্পাসের ভেতরে যে ছোট চত্বরটি রয়েছে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই অপ্রতুল।

একটু বৃষ্টি হলেই বিদ্যালয়ের মাঠ চত্বরে পানি জমে থেকে তা পচে দুর্গন্ধ ছড়ায়। অভিভাবকরা এ ব্যাপারে স্কুলের প্রধান শিক্ষক, সহকারী প্রধান শিক্ষকসহ দায়িত্বশীলদের বার বার বলেও কোনো ফল হয়নি। তারা বিষয়টি জরুরিভিত্তিতে সমাধানের জন্য স্কুল পরিচালনা কমিটিসহ প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেছেন।

অভিভাবকরা জানান, স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধানকে একাধিকবার বলা হলেও তারা কোন কর্ণপাত করছেন না। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের কারণে বাচ্চারা অসুস্থ হয়ে পড়ছে।

এ ব্যপারে মুরাদনগর ডিআর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শাহজাহান জানান, এ বিষয়ে কখনো কোন উদ্যেগ নেওয়া হয়নি কিন্তু মাঠটি আমাদের হলেও সেটি মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উপজেলার কেন্দ্রিয় মাঠ হিসেবেই ব্যবহার হচ্ছে। তাই মাঠটির জন্য উপজেলা প্রশাসনসহ সকলেরই উদ্যেগ প্রয়োজন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাসেলুল কাদের বলেন, মাঠটির মালিক হচ্ছে ডিআর উচ্চ বিদ্যালয়ের তাই সেটা দেখার দায়িত্ব স্কুল কর্তৃপক্ষের। কর্তৃপক্ষ যদি আমার কোন প্রয়োজন মনে করে তা হলে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।