মুখ খুললেন লোটাস কামাল

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● সদ্য সমাপ্ত কুমিল্লা সিটি নির্বাচন নিয়ে মুখ খুললেন পরিকল্পনা মন্ত্রী ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল)। তিনি বলেছেন, আমার নির্বাচনী এলাকায় সিটির কোনো অংশ নেই। এ জন্য সিটি এলাকায় কোনো সাংগঠনিক বা উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করতে পারিনি।

গত রবিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে তার নিজ কার্যালয়ে একান্ত সাক্ষাৎকারে কুমিল্লা সিটি নির্বাচন বিষয়ে নানা প্রশ্নের জবাব দেন তিনি।

কুমিল্লা সিটি নির্বাচন বিষয়ে আপনার মূল্যায়ন কী— জানতে চাইলে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘আমাকে অনেকে প্রশ্ন করেছে। এ বিষয়ে আমি প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করিনি। নির্বাচন হয়ে গেছে। নির্বাচন, ফলাফল ও অন্যান্য বিষয়ের মূল্যায়ন নিয়ে কথা বলতে চাই না। আমি মনে করি এ নির্বাচন নিয়ে কোনো প্রশ্ন থাকলে যারা নির্বাচনের সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন তাদের সঙ্গে কথা বলবেন। ’

কুমিল্লা সিটি দুই এলাকা নিয়ে গঠিত। এর মধ্যে সদর দক্ষিণ হচ্ছে আপনার নির্বাচনী এলাকা, সবাই ওখানে নৌকার ভালো ফলাফল আশা করেছিল— সে বিষয়ে আপনি কী বলবেন এমন প্রশ্নে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, এটা আপনি আংশিক ঠিক বলেছেন। আমি সরকারের মন্ত্রী, সঙ্গত কারণে সারা দেশকে আমার এলাকা মনে করি। কুমিল্লার ৯টি ওয়ার্ড অনেকেই জানেন আমার এলাকা। আসলে বিষয়টি সঠিক নয়। এক সময় আমি এই এলাকার এমপি ছিলাম। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত। সেই হিসেবে তারা এখনো মনে করে এটি আমার এলাকা এবং এই এলাকাটি ছিল এক সময় আমার। কিন্তু এখন এলাকাটি আমার নেই।

সবাই জানেন, কুমিল্লা সিটি কীভাবে সৃষ্টি হয়। কুমিল্লা সিটি সৃষ্টি হয় কুমিল্লা শহরের একটি পৌরসভা আর কুমিল্লা সদর দক্ষিণের একটি পৌরসভাকে ঘিরে। তখন এই দুটি পৌরসভাকে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন আখ্যায়িত করা হয়। ২০১১ সালের ৬ জুলাই এই সিটির ঘোষণা আসে। সেই সময় ওই সিটির একটি অংশ ছিল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার একটি অংশ। যার পরিচিতি ছিল কুমিল্লা সদর দক্ষিণ পৌরসভা। পরে ২০১৪ সালের মার্চের ২ তারিখে এই পৌরসভাকে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থেকে সম্পূর্ণ বাদ দেওয়া হয় এবং কুমিল্লা সিটির অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এর ফলে আমার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড বা উন্নয়ন করার আর সুযোগ থাকল না। সে জন্য এলাকাটি আমার নয়।

এ ছাড়া আমি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। আর সভাপতির পদে থেকেও সিটি করপোরেশনে আমার কাজ করার সুযোগ নেই। কোন বিবেচনায় এটা আমার এলাকা এমন প্রশ্নও রাখেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমি কুমিল্লা-১০ নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য। সেখানে দুটি উপজেলা, একটি হলো সদর দক্ষিণ উপজেলা এবং লাঙ্গলকোট উপজেলা। এই দুই উপজেলার কোনো অংশই সিটির অংশ নয়। এটাই আমার বক্তব্য। আমি মনে করি এতে জনমনে যে বিভ্রান্তি আছে তা দূর হবে। ’

প্রসঙ্গত, গত ৩০ মার্চ কুমিল্লা সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নির্বাচিত হন বিএনপির প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। সুত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।