মনোহরগঞ্জে জলাবদ্ধতায় চরম দূর্ভোগে হাজার হাজার পরিবার

মনোহরগঞ্জ প্রতিনিধি ● মনোহরগঞ্জ উপজেলায় বন্যা ও বর্ষায় উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম জলাবদ্ধতায় তলিয়ে যাওয়ায় চরম দূর্ভোগে পড়েছে হাজার হাজার পরিবার। এতে পানিবন্দি বিপর্যস্ত দিনাতিপাত করছে হাজার হাজার মানুষ। বিশুদ্ধ পানির অভাব ও নিরাপদ খাদ্য সংকটে ডায়রিয়াসহ নানা রোগের আক্রমন দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, অসাধু প্রভাবশালীরা খাল, নদী- নালা, পুকুর, ডোবাসহ পানি নিষ্কাশনের জায়গাগুলোতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে অবৈধভাবে দখল করে নিয়েছে। তাছাড়াও ডাকাতিয়া নদীতে আড়াআড়ি বাঁধ দিয়ে মাছ ধরার কারণে বন্যা ও বর্ষার পানি দ্রুত নামতে পারছেনা। ফলে দীর্ঘ জলাবদ্ধতায় মানুষ বিপর্যস্ত জীবনযাপন করছে। গ্রামীণ রাস্তাঘাটগুলো জলাবদ্ধতায় নষ্ট হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এখনো অনেক রাস্তাঘাটে পানি অবস্থান করছে। ফলে মানুষের স্বাভাবিক যাতায়াতে বিঘ্ন ঘটছে। স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ছেলেমেয়েরা ভাঙ্গা ও জলাবদ্ধ রাস্তা ঘাটে যাতায়াতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। অনেক স্কুলের মাঠ পানিতে ডুবে গেছে। অনেক বাবা- মা সন্তানদের পানির ভয়ে স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় পাঠাতে ভয় পাচ্ছেন। জলাবদ্ধতা দীর্ঘায়িত হওয়ার আশঙ্কায় গ্রামীণ রাস্তাঘাটই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। এতে মানুষের দূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করছে।

এ বিষয়ে উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দেবেশ চন্দ্র দাস জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের ত্রাণসামগ্রী দেওয়ার জন্য আমার প্রতিবেদন প্রেরণ করেছি এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্যও প্রতিবেদন প্রেরণ করেছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইউসুপ আলী কুমিল্লার বার্তা ডটকমকে জানান, উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ক্ষতিগ্রস্থদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। সরকারিভাবে ত্রাণ সামগ্রীর ব্যবস্থা করার জন্য পিআইও অফিস প্রতিবেদন প্রেরণ করেছে। প্রয়োজনে আরো প্রতিবেদন প্রেরণ করা হবে। জলাবদ্ধতার বিষয়টি আমরা উপজেলায় আলোচনার মাধ্যমে নিরসনের জন্য চেষ্টা করবো।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।