প্রেমে পড়ে ঘরবাঁধার স্বপ্ন দেখেছিল সানজিদা

নিজস্ব প্রতিবেদক ● ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল সানজিদা। প্রেমের ফাঁদে পড়ে ঘরবাঁধার স্বপ্ন দেখেছিল সানজিদা। কিন্তু সে স্বপ্ন মুছে দিল ঘাতক প্রেমিক শাকিল। দীর্ঘদিন দৈহিক মেলামেশায় অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর পরিকল্পিতভাবে প্রেমিকাকে খুন করে প্রেমিক। কুমিল্লার চান্দিনার সানজিদা (১৪) ডা. ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা সদরের পূর্ব বেলাশহর এলাকায় এ নির্মম হত্যাকান্ড ঘটে। সানজিদা এলাকার মজনু মিয়ার মেয়ে।

শুক্রবার তার মরদেহ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে নিহত স্কুলছাত্রী সানজিদা অন্তঃসত্ত্বা থাকার আলামত পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় ঘাতক প্রেমিক ও তার বাবাসহ তিনজনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও সানজিদার পরিবারের সদস্যরা জানান, চান্দিনার বেলাশহর এলাকার ইব্রাহীম মিয়ার ছেলে বখাটে শাকিলের (১৯) সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সানজিদার প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। পরে বিয়ের আশ্বাস ও প্রতারণার ফাঁদে ফেলে সানজিদার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে শাকিল।

এরই একপর্যায়ে সানজিদা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হয়। পরে বৃহস্পতিবার বিকেলে পাশের বাড়ির ছাদে নিয়ে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী শাকিল প্রেমিকা সানজিদাকে ২টি কীটনাশক ট্যাবলেট খাওয়ায়। এসময় সানজিদাকে শ্বাসরোধ করে হত্যারও চেষ্টা করে শাকিল। আশপাশের লোকজন ঘটনা দেখে ফেললে শাকিল পালিয়ে যায়।

স্থানীয়রা সানজিদাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথেই মারা যায়। এ ঘটনায় এলাকায় এবং সানজিদার সহপাঠীদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

চান্দিনা থানার ওসি নাছির উদ্দিন মৃধা বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে সানজিদা অন্তঃসত্ত্বা ছিল বলে নিশ্চিত হয়েছি। এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।