প্রতিবাদের মুখে নিজ কার্যালয়ে ঢুকতে পারলেননা কুবি ভিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক ● শোক দিবসে ক্লাস নেওয়ার অভিযোগে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শিক্ষক মাহবুবুল হক ভূঁইয়াকে দেওয়া এক মাসের বাধ্যতামূলক ছুটি প্রত্যাহারের দাবিতে কুবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আশরাফ নিজ কার্যালয়ে প্রবেশ করতে দেয়নি কুবি শিক্ষক সমিতি।

রোববার বেলা সোয়া ১১টায় নিজ কার্যালয়ে প্রবেশ করার সময় শিক্ষকদের বাধার সম্মুখীন হন উপাচার্য। নিজ কার্যালয়ে প্রবেশ করতে না পেরে বিকাল ৫টায় তিনি তার বাসভবনে ফিরে গেছেন।

কুবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি সাবেক প্রক্টর আইনুল হক জানান, ওই শিক্ষকের এক মাসের বাধ্যতামূলক ছুটি প্রত্যাহারের দাবিতে আমরা অবস্থান নিয়েছি।

গত ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে ক্লাস নেওয়ার অভিযোগে তুলে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় প্রধান শিক্ষক মাহবুবুল হক ভূঁইয়ার বহিষ্কারের দাবিতে মঙ্গলবার উপাচার্যকে স্মারকলিপি প্রদান করে শাখা ছাত্রলীগ। পরে তারা ওই শিক্ষকের বহিষ্কার দাবিতে প্রশাসনিক ও একাডেমিক ভবন গুলোতে তালা লাগিয়ে দেয়।

ফলে দুই দিনে ১৯টি বিভাগে ক্লাস পরীক্ষা হয়নি। এতে বুধবার ১১টি ও বৃহস্পতিবার ৯টি সেমিস্টারের চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। পরে ছাত্রলীগের দাবির মুখে ওই শিক্ষককে
বাধ্যতামূলক এক মাসের ছুটিতে পাঠিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সেই সঙ্গে ঘটনা তদন্তে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

এদিকে শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রশাসনের বাধ্যতামূলক ছুটির সিদ্ধান্ত জানার সঙ্গে সঙ্গে ছুটি প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

১৭ আগষ্ট সন্ধ্যা ৬টায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আশরাফ কার্যালয় থেকে বাসবভনে যাওয়ার জন্য জিপে উঠলে তার জিপ ঘিরে ধরেন শিক্ষক নেতারা। তারা মাহবুবুল হকের ছুটি প্রত্যাহারের দাবিতে উপাচার্যের জিপের সামনে ও পিছনে দাঁড়িয়ে থাকেন।

এ সময় উপাচার্যপন্থি শিক্ষকদের সঙ্গে শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতাদের বাকবিতন্ডা হয়। আজও একই দাবিতে উপাচার্যের পথ আটকে দেন শিক্ষকরা।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।