না বলেই চলে গেলেন দুলাল ভাই…

এস এন ইউসুফ ● আলোর দিশারী পত্রিকার পাতার কান্না থামাবে কে..? সদা হাস্যোজ্জল প্রিয় বড় ভাই সাংবাদিক দুলাল ভাই আর কোনদিন আসবেনা এমন কথা মনে হলেই কেমন জানি হৃদয়টা হুহু করে কেঁদে উঠে।

একটি তাজা প্রাণ কিভাবে অকালে ঝড়ে যায় কেন সৃষ্টিকর্তার নিয়ম এতো কঠোর, অফিসে কাজ করছিলাম এর মধ্যোই জামাল ভাই দুলাল ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদটি জানান। আমার নিকট কোন ভাবেই বিশ্বাস হচ্ছিলোনা।

তবে প্রকৃতির নিয়ম যে বড়ই নিষ্ঠুর তাই মেনে নিতে হলো।

আমার জিবনের বড় একটি অর্জনের সাথে সাংবাদিক সামছুল করিম দুলালের নাম আজিবন স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে । সেই বিষয়টি হলো, আমাদের দেশে প্রকৃত সাংবাদিকদের জন্য তথ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক একটি পরিচয়পত্র প্রদান করা হয় যার নাম এক্রোডিটেশন কার্ড।এই কার্ডটি সংগ্রহে যে মানুষটি আমাকে আপন ভাইয়ের চেয়েও বেশী সহযোগিতা দিয়েছেন তা মনে হলেই চোখ দুটো জলে ঝাপসা হয়ে যায়।

দুলাল ভাই নেই সেই স্মৃতি আমি আজিবন হৃদয়ে গেঁথে রাখবো। খবর পেয়েই দুলাল ভাইয়ের জানাযার নামাজে শরীক হতে দুলাল ভাইকে শেষ বিদায় জানাতে, বাদ যোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে আমাদের মন্ত্রনালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা (সিনিয়র তথ্য অফিসার); আমাদের পিআরও স্যার শরিফুল আলম স্যার, মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা সামছু ভাই, মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা শ্রদ্বেয় জামাল ভাই সহ ছুটে গেলাম।

যোহরের নামাজ শেষ করেই বায়তুল মোকাররমের দক্ষিন গেইটে দাঁড়িয়ে রইলাম কখন আসবে দুলাল ভাইয়ের নিথর দেহ। এ্যাম্বুল্যান্সটি আসার সাথে সাথেই এগিয়ে গিয়েই গাড়ি থেকে নামিয়ে কাঁদে নিলাম দুলাল ভাইকে। শেষ বিদায়ের শুয়ে থাকা বক্সটি কাঁদে নিয়ে আমি অধম চেষ্টা করলাম দুলাল ভাইয়ের ঋণ শোধ করতে, জানি তা কোনদিন শোধ হবে না যে ভালোবাসা আমি পেয়েছি। নিথর দেহটি ছুয়ে দেখলাম এতোটা কোমল দেহের শ্যামলবর্ণের দেহটি নিয়ে চলে গেলেন ।আমি আজ নিশ্চিত করে বলতে পারি দুলাল ভাইয়ের এ চলে যাওয়া কোনভাবেই মেনে নিতে পারছেনা উনার সহকর্মী বন্ধু বান্ধব সহ অসংখ্য শুভাকাঙ্ক্ষীরা।

কারন যেতে তো হবেই তবে এতো তাড়াতাড়ি কেন।

দুলাল ভাইয়ের সাথে অভিমান করে নিরবে কাঁদেছে উনার সম্পাদনায় সম্পাদিত “সাপ্তাহিক আলোর দিশারী” আর “সাপ্তাহিক দপ্তর বার্তা”। আলোর দিশারীর কান্না হয়তো দুলাল ভাইয়ের কানে কোনদিনই পৌছবে না তবে এটা নিশ্চিত দুলাল ভাইয়ের স্পর্শ বিহীন পত্রিকা গুলোর কাঁন্না থামানো কারো পক্ষেই সম্ভব না। দুলাল ভাই আপনি বিহীন দপ্তর বার্তা আর আলোর দিশারী এখন অসহায়। দুলাল ভাইয়ের অকাল মৃত্যুর শোকে আজ লাকসামের আকাশ বাতাস ভারী হয়ে অাছে। কুমিল্লার সাংবাদিকদের মাঝেও বিরাজ করছে নিবির নিস্তব্দতা। আমি ব্যক্তিগত ভাবে দুলাল ভাইয়ের জন্য সকলের নিকট দোয়া কামনা করছি। সবাই দুলাল ভাইয়ের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করবেন, এটাই সবার নিকট চাওয়া ছাড়া আর কিছুই করার নেই। সবাই দোয়া করবেন প্লিজ সবাই দোয়া করবেন।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।