নানামুখী উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে লাকসামের যোগাযোগ ব্যবস্থা

মশিউর রহমান সেলিম ● স্থাণীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তরের নানামুখী উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে কুমিল্লার লাকসামের সার্বিক যোগাযোগ ব্যবস্থা। এমন হাওয়া বইছে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে।

২০১৬-২০১৭ অর্থবছর যেন উপজেলা সবক’টি ইউনিয়নের গ্রামীণ অবকাঠামোসহ যোগাযোগ ব্যবস্থায় নানাহ প্রকল্প বাস্তবায়নে ধারাবাহিক উন্নয়ন সাফল্যে মোড়ানো ঐতিহ্যের বছর। সার্বিক যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্ষেত্রে প্রধান প্রধান সড়কগুলোর উন্নয়ন বাস্তবায়ন ছিলো উপজেলাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা। স্থানীয় সংসদ সদস্য মো. তাজুল ইসলামের আন্তরিকতায় ওইসব প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা যেনো মহাবিপ্লব ঘটেছে। স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকা ব্যায়ে নানাহ অবয়বে পুরো উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্ষেত্রে চলছে আধুনিকতার ছোঁয়া।

বিশেষ করে পল্লীসড়ক ও কালভার্ট মেরামত কর্মসূচী প্রকল্পে আওতায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে মোট ৩টি প্যাকেজের মাধ্যমে লাকসাম-মনোহরগঞ্জ সড়ক মেরামত ৬ হাজার ৪’শ কিঃ মিঃ। ৪ কোটি ৪৩ লক্ষ টাকা ব্যায়ে ১২ ফুট থেকে ১৬ ফুটে দু’পাশে প্রসস্তকরণসহ রক্ষনাবেক্ষন। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গুরুত্বপূর্ন পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প-২ (আইআরআইডিপি-২) প্রকল্পের আওতায় ১ কোটি ৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নরপাটি-আজগরা সড়ক-০.৪৭৫ কিঃ মিঃ। কান্দিরপাড় ইউপি অফিস- ছনগাঁও ঈদগাঁহ সড়ক ০.৮০০ কিঃ মিঃ ও চেঙ্গাহাটা আরএন্ডএইচ সড়ক-নূরপুর বাজার সড়ক ০৫০০ কিঃ মিঃ, মোট ১.৭৭৫ কিঃ মিঃ রাস্তা উন্নয়ন করা হয়। এছাড়াও একাধিক প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে।

পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন (কুমিল্লা, বি-বাড়িয়া ও চাঁদপুর জেলা) প্রকল্পের আওতায় ৯৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যায়ে চরবাড়িয়া-পুলাইয়া সড়ক ১.১০০ কিঃ মিঃ ও তাঁতীপাড়া- আজগরা সড়ক ০.৬৬০ কিঃ মিঃ মোট ১.৭৬০ কিঃ মিঃ রাস্তা এবং একাধিক প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে। পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন (লাকসাম, মনোহরগঞ্জ ও বরুড়া) প্রকল্পের আওতায় ৭২ লক্ষ টাকা ব্যায়ে মোহাম্মদপুর-বেতিহাটি রাস্তায় একটি কালভার্ট নির্মাণ। কৃষ্ণপুর (ষোলাপুস্করনী)-ছিলোইন সড়ক মেরামত ২.৩৩২ কিঃ মিঃ। বড়বাম-আরএইচডি-ছিলোইন সড়ক মেরামত ০.৬৪০ কিঃ মিঃ এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলা সড়ক হতে গোবিন্দপুর গ্রাম্য সড়ক (সৈয়দ সামছুল হক) সড়ক মেরামত ০.৫০০ কিঃ মিঃ মোট ৩.৪৭২ কিঃ মিঃ রাস্তা মেরামত ও একটি কালভার্ট নিমার্ণ। এছাড়া একাধিক প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে।

৩য় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচী (পিইডিপি-৩) প্রকল্পের আওতায় ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা ব্যায়ে উত্তরদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নিমার্ণ , চিকোনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নিমার্ণ, হারাখাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নিমার্ণ করা হয়। এছাড়া দীঘিরপাড় সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নিমার্ণ, পশ্চিমজগৎপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নিমার্ণ, আজগরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বাউন্ডারী ওয়াল নির্মাণ কাজ চলমান আছে এবং বিদ্যালয় বিহীন এলাকায় ১৫’শ প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ৫৫ লক্ষ ৩৯ হাজার টাকা ব্যায়ে তপইয়া মৈয়ুরের নেছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নিমার্ণ করা হয়।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানায়, স্থানীয় সংসদ সদস্য মোঃ তাজুল ইসলাম মহোদয়ের নির্দেশে আমরা বাস্তবায়নকৃত প্রকল্পগুলোর উন্নয়নে সার্বিক ভাবে তদারকির মাধ্যমে শতভাগ কাজ বিজ্ঞ ঠিকাদারদের কাছ থেকে আদায় করে নিয়েছি।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।