নাঙ্গলকোট ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু

নাঙ্গলকোট প্রতিনিধি ● নাঙ্গলকোটের বেসরকারি ট্রমা হাসপাতালে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় শনিবার সকালে হৃদয় (১২) নামে এক শিশুর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। সে উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের তুগরিয়া গ্রামের শাহ আলমের ছেলে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের তুগরিয়া গ্রামের শাহ আলমের ছেলে হৃদয় গত ৪ মে বৃহস্পতিবার গাছ থেকে পড়ে ডান পা ভেঙ্গে যায়, পরে অসুস্থ হৃদয়কে নাঙ্গলকোট উপজেলা সদরের ট্রমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার তার পায়ে প্লাষ্টার করলে তাকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। গত শুক্রবার রাতে হৃদয়ের পায়ে প্রচন্ড ব্যাথা হয়।

শনিবার সকালে অসুস্থ হৃদয়কে আবার ট্রমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সাইফুল ইসলাম হৃদয়কে ইনজেকশান পুস করলে হৃদয় অচেতন হয়ে পড়েন। পরে তাকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হৃদয়কে মৃত ঘোষণা করেন। হৃদয়ের দাদা আবদুস সাত্তার বলেন, এক সপ্তাহ পূর্বে হৃদয়কে ট্রমা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। গত শুক্রবার রাতে হৃদয় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে গতকাল শনিবার সকালে আবার ট্রমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ট্রমা হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার হৃদয়ের চিকিৎসার জন্য স্যালাইন এবং ইনজেকশান আনতে বলেন। ইনজেকশান আনার পর ডাক্তার হৃদয়কে ইনজেকশান দেয়ার সাথে-সাথে হৃদয়ের মৃত্যু হয়।

ট্রমা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সাইফুল ইসলাম বলেন-হৃদয়কে মুমুর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে আনা হলে তাকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেফার করা হয়। হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়। ট্রমা হাসপাতালের ব্যবস্থাপক মনির হোসেন বলেন, হৃদয়কে গতকাল শনিবার সকালে হাসপাতালে আনার পর অবস্থা খারাপ দেখে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেফার করা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ব্যাপারে তাজুল ইসলাম মেম্বার দায়িত্ব নিয়েছেন।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।