যে গানটির কারনে পর্নোগ্রাফি মামলা হয়েছে কুসুমের বিরুদ্ধে

জাগোনিউজ ● ‘নেশা’ শিরোনামের একটি মিউজিক ভিডিও প্রকাশের পর নতুন করে আলোচনায় এসেছেন অভিনেত্রী কুসুম শিকদার। গেল ৩ আগস্ট এই মিউজিক ভিডিওটি প্রকাশের পর প্রশংসার পাশাপাশি কুসুমকে সমালোচনাও হজম করতে হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, এই মিউজিক ভিডিওতে যৌন উত্তেজক দৃশ্য ও অশ্লীল শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। এমনকি গত ১৩ আগস্ট গানটির সব বৈধ-অবৈধ ভিডিও ও টিজার ইউটিউব থেকে সরানোর জন্য আইনজীবী আফতাব উদ্দিন ছিদ্দিকী রাগিব আইনি নোটিশ দেন।

কিন্তু গানটি না সরানোয় রোববার পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১২-এর ৮ ধারায় মামলা করা হয় কুসুম শিকদারের বিরুদ্ধে। ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নুরুন্নাহার ইয়াসমিনের আদালতে মামলাটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খন্দকার নাজমুল আহসান। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে রমনা থানাকে অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় কুসুম শিকদার ছাড়াও সহ-মডেল খালেদ হোসাইন সুজন, ভিডিওটির পরিচালক শুভ্র খান ও শ্রাবণী ফেরদৌস এবং ভিডিও প্রকাশক প্রতিষ্ঠান বঙ্গ’র (স্টেলার ডিজিটাল লি.) ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ কয়েকজনকে আসামি করা হয়।

‘নেশা’ মিউজিক ভিডিওর মাধ্যমে পর্নোগ্রাফির মামলা হওয়ার পর কী ভাবছেন কুসুম শিকদার, কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন কি না জানতে চাইলে তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমি অনলাইন গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানতে পেরেছি আমার বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফির মামলা করা হয়েছে। তবে এ নিয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই। কারণ আদালত থেকে হাতে কোনো অফিশিয়ালি মামলার কাগজ পাইনি।’

‘শঙ্খচিল’ ছবির এই অভিনেত্রী বলেন, ‘শুনেছি মামলা করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খন্দকার নাজমুল আহসান। ওনার সাথে আমার ব্যক্তিগত কোনো ক্ল্যাশ নেই, ওনাকে আমি চিনিই না। মামলা যেহেতু হয়েছে সেহেতু শিগগির আদালত থেকে কাগজ পাব আশা করছি। তারপর যা ব্যবস্থা নেয়ার আইনিভাবেই নেয়া হবে।’

মামলার আরেক আসামি মিউজিক ভিডিও’র নির্মাতা শ্রাবণী ফেরদৌসের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ব্যক্তিগত মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।