দুর্নীতি মামলায় সাক্কুর স্থায়ী জামিন

নিজস্ব প্রতিবেদক ● দুর্নীতি দমন কমিশনের করা দুর্নীতি মামলায় স্থায়ী জামিন পেয়েছেন কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের নববির্বাচিত মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। বুধবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা তাকে স্থায়ী জামিন দেন।

এছাড়া মামলাটিতে অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য ১২ জুন তারিখ ধার্য করেন। একইসঙ্গে মামলাটি তার আদালত থেকে ঢাকার ৮ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে বিচারের জন্য বদলি করেন। ওই আদালতেই মামলাটির অভিযোগ গঠনের শুনানি হবে।

এর আগে জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় আইনজীবীর মাধ্যমে আজ স্থায়ী জামিনের আবেদন করেন সাক্কু।

চার কোটি ৫৭ লাখ ৭১ হাজার ৯৩৩ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত অবৈধ সম্পদ অর্জন ও এক কোটি ১২ লাখ ৪০ হাজার ১২০ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করে মিথ্যা তথ্য দিয়ে দুদকে সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন।

এ অভিযোগে ২০০৮ সালের ৭ জানুয়ারি রাজধানীর রমনা থানায় দুদকের তৎকালীন সহকারী পরিচালক শাহিন আরা মমতাজ মামলাটি করেন। ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি সাক্কুর বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন তিনি।

গত ১৮ এপ্রিল দুদকের করা মামলাটিতে সাক্কুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা। পরে ৯ মে আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে ঢাকা মহানগর দায়রা জজের ভারপ্রাপ্ত বিচারক জাহিদুল কবির ২৪ মে পর্যন্ত তার জামিন মঞ্জুর করেন।

গত ৩০ মার্চ কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমাকে সাড়ে ১১ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য কুমিল্লার মেয়র নির্বাচিত হন বিএনপি নেতা সাক্কু। ২০১১ সালে তিনি সীমার বাবা আফজল  খানকে হারিয়েছিলেন আরও বড় ব্যবধানে। তখন দুই জনের মধ্যে ভোটের পার্থক্য ছিল ৩৪ হাজারের মত।

২০ এপ্রিল তার মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে গেজেট প্রকাশিত হয়। পরে ১১ মে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে মেয়রের শপথ নেন তিনি। শপথ গ্রহণের ছয় দিনের মাথায় ১৭ মে সিটি করপোরেশনের প্রথম সভায় কুমিল্লার জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর আলম তার হাতে মেয়রের দায়িত্বভার তুলে দেন।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।