দাউদকান্দিতে যুবলীগের সম্মেলনে দুর্বৃত্তের গুলি

দাউদকান্দি প্রতিনিধি ● দাউদকান্দিতে যুবলীগের সম্মেলনে দুর্বত্তের গুলিতে ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়ন সাবেক যুবলীগের সভাপতি মাহবুবুল হক সবুজ গুলিবিদ্ধ হয়। এ সময় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে ৭/৮ জন যুবলীগ কর্মী আহত হয়। গুলিবিদ্ধ যুবলীগ নেতা সবুজকে গৌরীপুর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর তাকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার রায়পুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ও দক্ষিণ ইউনিয়নে যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল (অবঃ) সুবিদ আলী ভূইয়া, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মেজর (অবঃ) মোহাম্মদ আলী সুমন, কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সারওয়ার হোসেন বাবুসহ উপজেলা যুবলীগসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ যখন মঞ্চে উপস্থিত হন তখন সমাবেশ স্থলে চারদিক থেকে মিছিল আসতে শুরু করে।

সম্মেলনে ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ও দড়্গিণ ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীগণ রঙ্গিন সাজে সেজে ব্যান্ড পার্টি বাঁজিয়ে সমাবেশ স্থলে আসার মুহুর্তে ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়ন যুবলীগের প্রার্থী সালেহ আহমেদ মিয়াজীকে লক্ষ্য করে দুর্বৃত্তরা গুলি ছুড়লে তার সহকর্মী তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলে যুবলীগ নেতা সবুজের হাতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়। তখন উভয় প্রার্থীর লোকজন গুলির শব্দ শুনে পালানোর সময় পদদলিত হয়ে ৭/৮জন যুবলীগ কর্মী আহত হয়।

ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি প্রার্থী জালাল উদ্দীন বলেন, একটি মহল সাম্মেলনকে বাঞ্চাল করার জন্য এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। আমরা যুবলীগের পক্ষ থেকে এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি প্রার্থী মোঃ সালেহ আহমেদ মিয়াজী বলেন, আমার নেতাকর্মীরা ব্যান্ড পার্টি নিয়ে সম্মেলনস্থলে আসার পর দুর্বৃত্তরা আমাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে আমার সহকর্মী আমাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। তখন আমি প্রাণে রক্ষা পেলেও গুলিটি ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুল হক সবুজের হাতে লাগে।

দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মেজর (অবঃ) মোহাম্মদ আলী সুমন বলেন, দুই ইউনিয়নের যুবলীগের সম্মেলন যখন জনসমুদ্রে পরিণত হয় তখন একটি গোষ্ঠী তা বাঞ্চাল করার জন্য পরিকল্পিতভাবে এই হামলা চালায়। ইনশাল্লাহ আমরা কয়েক হাজার নেতা-কর্মীদের নিয়ে সুষ্ঠু ও সুন্দর ভাবে সম্মেলন করেছি। উপজেলা যুবলীগের নেতৃবৃন্দ ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদেরকে নিয়ে শক্তিশালি কমিটি গঠন করা হবে।

এব্যাপারে দাউদকান্দি সার্কেলের সিনিয়র পুলিশ সুপার মোঃ মহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। যারাই এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদেরকে দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।