তিতাসে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর

তিতাস প্রতিনিধি ● তিতাসে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতিকে হত্যার উদ্দেশ্যে ছাত্রলীগ কার্যালয়ে সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার গাজীপুরস্থ কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের প্রধান কার্যালয়ে শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এতে কার্যালয়ের ভেতরের আসবাবপত্রসহ বঙ্গবন্ধুর ছবি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাঙচুর করা হয়। এসময় সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হন উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলামসহ (২৫) তিনজন।

উপজেলা ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার একদল যুবলীগ নামধারী কর্মী দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের গাজীপুরস্থ প্রধান কার্যালয়ে যায়। সেখানে বসা ছিলেন তিতাস উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম। অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত সন্ত্রাসীরা ছাত্রলীগ নেতা নজরুলের কাছে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন সাদ্দামের অবস্থান জানতে চায় এবং তাদের হাতে অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে কার্যালয়ের আসবাবপত্র ভাঙচুর শুরু করে। এ সময় বঙ্গবন্ধুর ছবি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিও ভাঙচুর করে সন্ত্রাসীরা। সন্ত্রাসীদের হকিস্টিক ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক নজরুল। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে পাঠায়।

এবিষয় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোমেন সাদ্দাম কুমিল্লার বার্তা ডটকমকে বলেন, ‘উপজেলা জামায়াত নেতার আত্মীয় যুবলীগ নামধারী মো. তৌফিক, মো. তুষার মিয়া, জসিম মিয়া ও শাহপরানের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী একটা মহলের ইন্ধনে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। কিন্তু আমাকে না পেয়ে নজরুলকেসহ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ছবি ও গণতন্ত্রের মানসকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাঙচুর করে। সত্যি এটি একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা চাই।’

কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ফরহাদ আহমেদ ফকির বলেন, ‘সন্ত্রাসীদের হামলায় আমার কার্যালয়সহ জাতির জনকের ছবি ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুরের ঘটনা অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়। এরা যুবলীগের নামধারী জামায়াত-শিবিরের কর্মী বলেই এমন নগণ্য কর্মকাণ্ড করতে পেরেছে। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেপ্তারেরও দাবি জানাচ্ছি।’

তিতাস থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুল আলম কুমিল্লার বার্তা ডটকমকে বলেন, ‘বিষয়টি শোনার সাথে সাথে আমি ফোর্স পাঠাই। তবে ঘটনাস্থলে কাউকে পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।