জীবিত ব্যক্তি ভোটার তালিকায় মৃত!

মাহফুজ নান্টু ● আমরা এক গ্রামের অনেকগুলো লোক, এখনো আমরা মরি নাই। বাইচ্চা রইছি। কিন্তু আমডারে মনে করছে মইরা গেছি তাই ভোটার তালিকায় আমাদের নাম উডাই নাই। নাম না থাকার কারনে গত ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে ভোট দিতে পারি নাই। অহন ভোটার তালিকার কাম হইতাছে। কিন্তু এই তালিকাতে আমডার নাম নাই । কেন আমডা কি এই দেশের নাগরিক না। ভোটার তালিকায় নাম না থাকার কারনে এভাবেই মনের ক্ষোভ প্রকাশ করছিলেন আদর্শ সদর উপজেলার ৪ আমড়াতলী ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সত্তোরোর্ধ্ব মো: সুলতান আহমেদ। তিনি যখন ক্ষোভের সাথে কথাগুলো বলছিলেন তখন একই এলাকার মকবুল হোসেন এসে সুলতান আহমেদের সাথে যোগ দিলেন। এক সাথে ক্ষোভ প্রকাশ করে জানালেন, এত বছর ভোটার তালিকায় নাম ছিলো, আমরাও  ভোট দিলাম। বাদপরা  নামের তালিকায় ওই এলাকার শতবর্ষী বৃদ্ধা হাবিবুর রহমান, নব্বইর্ধ্বো আবদুল ওহাব, আবদুল মালেক, ফরিদ উদ্দীন, উমিয়া খাতুন, আবদুল জব্বার, নজির আহমেদ খলিফা, বেলায়েত হোসেনসহ আরো অনেকেই বলেন,  কেন আমডার নাম বাদ পরলো  জানতাম চাই। আমডা কি মইরা গেছি। নাকি আমডা দেশের নাগরিক না। তারার কারনে (নির্বাচন কর্মকর্তাদের) আমরা এবার ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে ভোট দিতাম পারি নাই।

পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আর্দশ সদর উপজেলার ৪নং আমড়াতলী ইউনিয়নের শিমড়া বলেশ্বর,রামপুর,কালখড়পাড় ও মৌলভীনগর মিলিয়ে ৬ নং ওয়ার্ড গঠিত। এ ওয়ার্ডের অন্তত অর্ধশত বয়:বৃদ্ধের নাম ভোটার তালিকা থেকে বাদ পরেছে। কি কারনে বাদ পরেছে এমন বিষয়ে স্থানীয় যুবক এমরান হাসান রানা, জোনাইদ, জনি জানান, এ এলাকায় অনেক  মুরুব্বীদেরকে মৃত ভেবে তাদের নাম ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। আবার ভোটার তালিকায় নাম যুক্ত রয়েছে কিন্তু  মধ্যে অনেকেই  বেঁচে নেই। স্থানীয়দের অভিযোগ মুরুব্বিদের মধ্যে যারা বেঁচে আছেন তাদের নামও ওই এলাকায় গত কয়েক বছরে মারা গেছেন তাদের নামের সাথে বয়স মিলিয়ে পরে অনুমান করে বাদ দেয়া হয়েছে।

এদিকে ভোটার তালিকা হাল নাগাদে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বাড়ি বাড়ি না গিয়ে গ্রামের একটি নির্দিষ্ট স্থানে বসে ভোটার তারিকা হালনাগাদ করেন। যার কারনে সংশ্লিষ্টরা সঠিক তথ্য পাওয়া নিয়ে যথেষ্ঠ সংশয়ের মধ্যে থাকেন এবং ভূল তথ্য সন্নিবেশ করে চলে যান। এমন ত্রুটিপূর্ণ কাজের ফলাফল স্বরুপ বেঁচে থাকা সত্বেও কারো নাম মৃতের তালিকায় উঠে আবার কেউ কেউ দু জায়গার ভোটার হন।

স্থানীয়রা জানান আদর্শ সদর উপজেলার ৪ নং আমড়াতলী ইউনিয়নের শিমড়া, রামপুর, বলেশ্বর, কালখড়পাড় ও মৌলভীনগর এ পাঁচটি গ্রাম মিলিয়ে ৬ নং ওয়ার্ড গঠিত।এ ওয়ার্ডের অর্ধশত ভোটারের নাম  ভোটার তালিকায় নেই। যে কারনে গত ইউপি নির্বাচন ও আদর্শ সদর উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে ভোটার তালিকায় বাদ পরা ভোটারগণ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেনি। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হলে পরবর্তী ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময় ঠিক করা হবে আশ্বস্থ করা হয়। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে ৬ নং ওয়ার্ডে ছবিসহ ভোটার তালিকা নিয়ে হালনাগাদের কাজ চলমান থাকলেও বাদপরা প্রবীন ভোটারদের ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত হয় নি।

এ বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করেন।  পরে নাম বাদপরা অর্ধশতাধিক ভোটারের বিষয়ে জানতে চাইলে ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি কতজন ভোটারের নাম তালিকাভুক্ত হয় নি। বাদ পরা ভোটারদের নামের তালিকা নিয়ে শ্রীঘ্রই তাদের নাম ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

এদিকে নির্বাচন অফিসের এক কর্মকর্তা নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানান, অনেক সময় স্থানীয়রা ভূল তথ্য দেয় বলে নাম বাদ পরে। স্থানীয়দের দেয়া তথ্য  দু একজন লোকের নাম ভূল হতে পারে অর্ধশতাধিক লোকের নাম বাদ পরা কতটুকু যৌক্তিক এমন প্রশ্নের জবাবে ওই কর্মকর্তা জানান, আমি নতুন এসেছি। এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারবো না।

এদিকে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা খোরশেদ আলমের কাছে অর্ধশত প্রবীন ভোটারদের নাম তালিকা থেকে বাদ পরা বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন নাম কেন বাদ পরেছে তা আমরা কি করে বলবো। তবে যাদের নাম বাদ পরেছে তাদেরকে অফিসে এসে যথাযথ ফরম পূরণ করে আবেদন করতে  বলেন আমরা নামের তালিকা  তদন্তপূর্বক অর্ন্তভুক্ত করে দেবো।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।