কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবির সন্দেহে দুই শিক্ষার্থীকে গণধোলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক ● কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবির সন্দেহে দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বুধবার দুপুরে শিবিরবিরোধী বিক্ষোভ মিছিল শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের কিছুটা দূরে তাদেরকে মারধর করা হয়।

সিলেটে দুই ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত করার প্রতিবাদে বুধবার ক্যাম্পাসে শিবিরবিরোধী বিক্ষোভ মিছিল করে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। বিক্ষোভ শেষে গণিত ৯ম ব্যাচের শিক্ষার্থী আব্দুর রহমানকে বাস থেকে নামিয়ে বিশ্বব্যিালয়ের ফটকের সামনে চায়ের দোকানের পাশে নিয়ে আসে ছাত্রলীগ কর্মীরা। পরে তাকে বেধড়ক পিটাতে থাকে ছাত্রলীগ কর্মী মাহমুদ মীর (নৃবিজ্ঞান ১০ম ব্যাচ), হাসান বিদ্যুৎ (পদার্থ ৬ষ্ঠ), রাফিউল আলম দীপ্ত (অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম), সাদ (নৃবিজ্ঞান ১১তম ব্যাচ) ও এআইএস বিভাগের ৭ম ব্যাচের শিক্ষার্থী দ্বীন ইসলাম লিখন, শাহাদাৎ হোসেন সৌরভ, মাসুদসহ আরো অনেকে। পরে আহত আব্দুর রহমানকে সিএনজিতে করে শহরে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

এ ঘটনার ঠিক পরপরই ইংরেজী বিভাগের ৭ম ব্যাচের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলামকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন সামাজিক বন বিভাগে শিবির বলে মারধর করে ছাত্রলীগ কর্মীরা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ বলেন, ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা শিবির নামধারী হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে নাশকতার চেষ্টা করবে তাদের বিষয়ে ছাত্রলীগ কঠোর অবস্থান নেবে।’

সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলাম মাজেদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন কাজে শিবির বাধা দিচ্ছে। গতকাল সিলেটে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে কুপিয়ে আহত করেছে। আমরা তাই ক্যাম্পাসে শিবিরবিরোধী অভিযান চালিয়েছি। ক্যাম্পাসে শিবিরকে মাথা উঁচু করতে দেব না। এ বিষয়ে আমরা বদ্ধপরিকর।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, দুই ছাত্রকে মারধরের বিষয়টি শুনেছি। তবে মারামারির ঘটনা ক্যাম্পাসের বাইরে ঘটেছে বলে জানান তিনি।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।