কুমিল্লায় ২৮১টি মণ্ডপ ঝুঁকিপূর্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ● কুমিল্লায় ৭৪৩টি পূজা মণ্ডপে হিন্দুদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ২৮১টি ঝুঁকিপূর্ণ এবং ২১৯টি অতিঝুঁকিপূর্ণ বলে জানান কুমিল্লা জেলা পুলিশ মো. শাহ আবিদ হোসেন।

আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়ে শেষ হবে ৩০ সেপ্টেম্বর। এদিকে, সময় বেশি না থাকায় প্রতিমা তৈরি ও গায়ে রঙের আঁচড় দিতে ব্যস্ত কারিগররা।

পুলিশ সূত্র থেকে জানা যায়, শারদীয় দুর্গাপূজাকে ঘিরে মণ্ডপগুলোকে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনীতে রাখা হবে। সাত শতাধিক পুলিশ সদস্যের সঙ্গে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবে চার হাজার ৪১০ জন আনসার সদস্য। এছাড়া নিরাপত্তায় থাকবেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অন্যান্য সদস্যরাও।

কুমিল্লা জেলা হিন্দু সম্প্রদায়ের ট্রাস্টের সভাপতি নির্মল পাল জানান, এ বছর দুর্গা দেবী নৌকায় এসে দোলায় চলে যাবেন। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর দুর্গা পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। আর ২৫ সেপ্টেম্বর দুর্গোৎসবের মূল পূজা শুরু হয়ে শেষ হবে ৩০ সেপ্টেম্বর।

তিনি বলেন, ‘অন্যান্য বছরের চেয়ে এ বছর আমাদের পূজা মণ্ডপের পরিমাণ বেড়েছে। কুমিল্লার ৭৪৩টি পূজা মণ্ডপে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা। অধিকাংশ মণ্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ। এখন শুধু প্রতিমার গায়ে রঙের আঁচড় বাকি আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এবারের দুর্গাপূজা উদযাপনে আমরা সব ধর্মের মানুষদের সহযোগিতা কামনা করি। অতীতেও অনেক সহযোগিতা পেয়েছি এবং সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে পূজা উদযাপন করতে পেরেছি।’

কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার মো. শাহ আবিদ হোসেন জানান, শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষে কুমিল্লা ১৬টি উপজেলায় ৭৪৩টি পূজা মণ্ডপে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পূজা উদযাপন করবেন। ৭৪৩টি পূজা মণ্ডপের মধ্যে ২৮১টি ঝুঁকিপূর্ণ এবং আরও ২১৯টি অতিঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ পূজা মণ্ডপে পুলিশের পক্ষ থেকে নেওয়া হবে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা। পূজা চলাকালীন দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি সাদা পোশাকে নারী ও পুরুষ পুলিশ সদস্যরা বিভিন্ন পূজা মণ্ডপসহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে বিশেষ নজরদারি রাখবে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের তথ্য মতে, এবার সারাদেশে প্রায় ৩০ হাজার মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।