কুমিল্লায় একের পর এক পুকুর ভরাট!

নিজস্ব প্রতিবেদক ● কুমিল্লা নগরীসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ পুকুরগুলো একের পর এক ভরাট হয়ে যাচ্ছে। সবশেষ নগরীর ঠাকুরপাড়া কালি মন্দির সংলগ্ন পুকুরটি ভরাটের তোড়জোড় শুরু হয়েছে। টিনের বেড়া দিয়ে আড়াল করে ময়লা ফেলা হচ্ছে পুকুরটিতে। চলতি বছর এ পর্যন্ত নগরীতে ৮-১০টি পুকুর ভরাট করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এছাড়া জেলার লাকসাম, চৌদ্দগ্রাম, দেবিদ্বার, মুরাদনগরসহ আরও কয়েকটি উপজেলায়ও একের পর এক ভরাট করা হচ্ছে পুকুর।

নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, সরকারি ও ব্যক্তিমালিকানার অর্ধশতাধিক পুকুর দীর্ঘদিন পরিষ্কার না করে কৌশলে ভরাট করা হচ্ছে। বিশেষ করে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের পাশের, আদালতের উত্তর পাশের, টিএন্ডটি অফিসের পাশের ও ফয়জুন্নেছেনা স্কুলের পাশের পুকুরগুলো ভরাট চলছে। ভরাট করার পরিকল্পনায় পুকুরগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় রেখে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

ঠাকুরপাড়ার বাসিন্দা মনিরুল ইসলাম জানান, কালী মন্দির সংলগ্ন পুকুরটি ভরাট হয়ে গেলে জরুরি কাজে এ এলাকায় পানি পাওয়া যাবে না। পুকুরটি রক্ষা করা খুবই প্রয়োজন।

বাংলাদেশ পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন (বাপা) কুমিল্লার সভাপতি ডা. মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ জানান, পুকুর ভরাটের কারণে নগরীতে জলাবদ্ধতা বাড়ছে। পুকুর রক্ষার জন্য প্রশাসনকে আরও কঠোর হতে হবে।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ মোহাম্মদ নুরুল্লাহ বলেন, পুকুর রক্ষায় কাজ করছি। এ নিয়ে স্থানীয় এমপি আ ক ম বাহউদ্দিন বাহারের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তিনি দেশে ফিরলে ব্যবস্থা নেব।’

জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর আলমের ভাষ্য, নগরীতে পুকুর ভরাটের কারণে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে আসবে। বাড়বে জলাবদ্ধতাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক বিপর্যয়। পুকুর ভরাটের বিষয়টি নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।