কুমিল্লার আদালত চত্ত্বরে বিজিবি’র গাড়ি দিয়ে পালালো আসামী!

নিজস্ব প্রতিবেদক ● চৌদ্দগ্রামের সীমান্তবর্তী উজিরপুর এলাকার চিহ্নিত একাধিক মাদকসহ অন্যান্য মামলার আসামী জাহাঙ্গীর ওরফে গাদ্দার জাহাঙ্গীর (৪০) নামের এক মাদক চোরাকারবারীকে বুধবার দুপুরে বিজিবি’র একটি পিক-আপযোগে আদালত চত্ত্বর থেকে পালানোর সুযোগ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে মান্নান নামের এক হাবিলদারের নেতৃত্বে কয়েকজন বিজিবি’র সদস্যের বিরুদ্ধে।

প্রত্যক্ষদর্শী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আদালত চত্ত্বরে থাকা একাধিক সুত্রে জানা যায়,জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সীমান্তবর্তী উজিরপুর গ্রামের ভারতীয় তারকাটার বেড়াসংলগ্ন এলাকার চিহ্নিত অস্ত্রধারী চোরাকারবারী জাহাঙ্গীর ওরফে গাদ্দার জাহাঙ্গীর একাধিক মাদক ও অস্ত্র মামলার আসামী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দায়িত্বশীল আইনজীবি সুত্র জানায়,গতকাল বুধবার অস্ত্রধারী চোরাকারবারী জাহাঙ্গীরের একটি মামলার হাজিরার তারিখ। দুপুরে সে তার কয়েকজন সহযোগীসহ আদালত প্রাঙ্গনে পৌঁছে। পরবর্তীতে বেলা আনুমানিক ২ টায় একজন ১০ বিজিবি ব্যাটালিয়নের হাবিলদার মান্নানের নেতৃত্বে বিজিবির কয়েকজন সদস্য একটি বিজিবি লেখা পিক-আপসহ আদালত চত্ত্বরে পৌঁছে।

একসময় ওই চিহ্নিত চোরাকারবারী জাহাঙ্গীর ওরফে গাদ্দার জাহাঙ্গীরকে ওই বিবিবি’র পিক-আপ’এ উঠিয়ে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দায়িত্বশীল সুত্র আরো জানায়, কোন আসামীকে আদালতে আনা-নেওয়ার দায়িত্ব বিজিবির কাজ নয়।

আটক, গ্রেফতার বা অন্যকোন মামলার আসামী আদালতে আনা-নেওয়া পুলিশের কাজ। এক্ষেত্রে বিজিবি’র সরকারী পিক-আপ’এ একজন হাবিলদারের নেতৃত্বে কয়েকজন বিজিবি সদস্য কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে মাদক চোরাকারবারীকে বহন করে অজ্ঞাতস্থানে নেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আদালত চত্ত্বরে চলছে কানাঘুষা।

ঘটনার সময় আদালত প্রাঙ্গণে থাকা অনেকেই বিষয়টি টের পেয়ে মোবাইল যোগে ছবি তুলে নেয়। আর এভাবেই তথ্যটি এসে যায় সংবাদকর্মীদের কাছে। বিষয়টি জানতে হাবিলদার মান্নানের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে, তিনি আদালত প্রাঙ্গণে বুধবার দুপুরে যাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, জাহাঙ্গীরের সাথে আমার সরকারী কাজ ছিল, কাজ শেষে আমরা চা পান করে যার যার গন্তব্যে চলে যাই।

error: দুঃখিত কুমিল্লার বার্তার কোন কনটেন্ট কপি করা যায় না।