আবেদনের ৯ বছর পর কুমিল্লায় এল ইন্টারভিউ কার্ড!

নিজস্ব প্রতিবেদক ● চাকরির জন্য আবেদনের দীর্ঘ ৯ বছর পর মিলেছে ইন্টারভিউ কার্ড। কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার ছায়কোট গ্রামের টুটুল কুমার ঘোষের নামে মুন্সিগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কার্যালয় থেকে ইস্যু করা হয়েছে এ কার্ড। কিন্তু যার নামে কাঙ্খিত ওই ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যু করা হয়েছে, সরকারি চাকরিতে প্রবেশে তার বয়সের সীমা অনেক আগেই পার হয়ে গেছে।

জানা যায়, ২০০৮ সালে টুটুল কুমার ঘোষ একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার বিজ্ঞপ্তির সূত্র ধরে মুন্সিগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কার্যালয়ের বেঞ্চ সহকারী পদে আবেদন করেন। দীর্ঘ দিন তিনি ওই পদে চাকরির জন্য ইন্টারভিউ কার্ডের অপেক্ষায় ছিলেন। এরই মধ্যে সরকারি চাকরিতে প্রবেশে বয়সের সময়সীমা শেষ হওয়ায় তিনি ওই চাকরির কথা রীতিমত ভুলেই গেছেন। কিন্তু রেজিস্ট্রি ডাকযোগে লিখিত পরীক্ষার জন্য তার নিকট সোমবার সকালে একটি কার্ড পৌঁছালে তিনি বিস্মিত হন। পরে এ ইন্টারভিউ কার্ডের ফটোকপি তিনি সাংবাদিকদের নিকট সরবরাহ করেন। নিয়োগ সংক্রান্ত বাছাই কমিটির চেয়ারম্যান ও চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক স্বাক্ষরিত ওই লিখিত পরীক্ষার কার্ডে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘আগামী ২৬/০৫/২০১৭খ্রি. তারিখ শুক্রবার সকাল ১০:৩০ ঘটিকার সময় মুন্সিগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।’

লিখিত পরীক্ষার ওই কার্ডটি হাতে পেয়ে দুই সন্তানের জনক টুটুল কুমার ঘোষ আক্ষেপ প্রকাশ করে কুমিল্লার বার্তা ডটকমকে বলেন, এটা একটা তামাশা। ব্যাংক ড্রাফট ও অন্যান্য কাগজপত্র সংগ্রহ করার পর অর্থ ব্যয় করে বেকারত্ব ঘুচাতে আবেদন করেছিলাম। আমার চাকরির বয়সতো অনেক আগেই চলে গেছে। এখন এই কার্ড দিয়ে আমি কী করবো? আমি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ভাল করলেও বয়সের কারণে এখন আমাকে চাকরি দেয়ার মতো অবস্থা কী কর্তৃপক্ষের আছে? এটাতো কর্তৃপক্ষের রসিকতা ছাড়া আর কিছুই না।’