কুমিল্লার সাধারণ নাগরীকদের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরণ শুরু

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● বুধবার থেকে কুমিল্লার সাধারণ নাগরীকদের মাঝে ডিজিটাল ভোটার আইডি কার্ড (স্মার্ট জাতীয় পরিচয়) বিতরণ শুরু হয়েছে। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ০১নং ওয়ার্ডের বিষ্ণুপুর সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ে বুধবার সকাল থেকে কার্ড বিতরন শুরু হয়। বুধবার ওই ওয়ার্ডের ২ হাজার ২শ’ ৭১ জন পুরুষ ভোটারের মাঝে এ কার্ড বিতরন করা হবে।

এর পর দিন বৃহস্পতিবার একই ওয়ার্ডের মহিলা ভোটারদের মাঝে একই স্থানে কার্ড বিতরন করা হবে। যারা নির্ধারিত এ দুই দিন কার্ড গ্রহন করতে পারবেন না তাদের জন্য আগামী শনিবার বাড়তি একদিন কার্ড বিতরন করা হবে। ওই দিন পুরুষ এবং মহিলা উভয় ভোটাররাই কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন।

জেলা নির্বাচন অফিস থেকে সকল ভোটারদের যথা সময়ে নিজ নিজ এলাকা থেকে স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কারন পরে কার্ড সংগ্রহ করা অনেক কষ্টসাধ্য হবে বলে জানা গেছে। কোথায় কোথায় কাদের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরন করা হবে সে তালিকা এ সংবাদের নিচে দেওয়া আছে।

এর আগে গত সোমবার কুমিল্লায় উদ্বোধন করা হয় স্মার্ট কার্ড বিতরণ কার্যক্রম। ওই দিন দুপুরে কুমিল্লা টাউনহল সম্মেলন কক্ষে স্মার্ট কার্ড বিতরণ কাজের উদ্বোধন করেন নির্বাচন কমিশনার মোঃ রফিকুল ইসলাম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কুমিল্লার বিশিষ্ট ১২ জনকে স্মার্ট কার্ড প্রাদান করা হয়।

এসময় নির্বাচন কমিশনার মোঃ রফিকুল ইসলাম প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, কুমিল্লাবাসীর জন্য খুশির খবর দেশের অন্যান্য এলাকার চাইতে অনেক আগেই তারা স্মার্ট কার্ড পাচ্ছেন। স্মার্ট কার্ড এমন একটি প্রয়োজনীয় জিনিস যা বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা গ্রহন করার ক্ষেত্রে প্রয়োজন পড়ব।

তিনি বলেন, এটি আমাদের জন্য গর্বের বিষয় স্মার্ট কার্ডটি আন্তর্জাতিক মানের করে তৈরি করা হয়েছে। আগে আমরা বিশ্বের অন্যান্য দেশে পাসপোর্ট ছাড়া অন্য কোন কিছু উপস্থাপন করতে পারতাম না। কিন্তু এখন পাসপোর্টের পাশাপাশি বাংলাদেশী হিসেবে স্মার্ট কার্ডও আমাদের পরিচয় বহন করবে।

নির্বাচন কমিশনার বলেন, স্মার্ট কার্ডে একজন নাগরিকের সকল তথ্য সংরক্ষিত থাকবে। এটিকে নকল করা যাবে না। এ কার্ডের মাধ্যমে একজন মানুষকে খুব সহজে সনাক্ত করা যাবে।

আগামী নির্বাচনকে আইনানুগ প্রক্রিয়ায় অনুষ্ঠিত করার লক্ষ্যে তিনি কুমিল্লাবাসীর সহযোগিতাও কামনা করেন।

এদিকে প্রথম ধাপে কুসিকের সাতাশটি ওয়ার্ডের ২ লক্ষ ৭ হাজার ৫৫৬ জন ভোটারদের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হবে।

কুমিল্লা জেলা নির্বাচন কমিশনার সূত্র জানায়, ১৫ নভেম্বর বুধবার থেকে কুসিকের ২৭টি ওয়ার্ডের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ক্যাম্প করে ২ লক্ষ ৭ হাজার ৫৫৬ জন ভোটারদের হাতে স্মার্ট কার্ড তুলে দেওয়া হবে।

২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে পুরুষ ভোটার হচ্ছে ১ লক্ষ ২ হাজার ৭৪৭ জন এবং মহিলা ভোটার হচ্ছে ১ লক্ষ ৫ হাজার ১১৯ জন।

কার্ড বিতরণে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন কুসিক নির্বাচনের কমিশনারের টেকনিক্যাল কর্মকর্তাগণ। বিতরণের কাজ শেষ হবে আগামী বছরের ১৫ মার্চ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দুই লক্ষাধিক ভোটারদের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরণে একজন সংগীত শিল্পী, কলেজ অধ্যক্ষ, ডাক্তার, মুক্তিযোদ্ধা ও একজন প্রতিবন্ধীসহ মোট ১২ জনের মাঝে স্মার্ট কার্ড বিতরণ করা হয়।

স্মার্ট কার্ড পাওয়া ওই ১২ সদস্য হলেন, কুমিল্লা জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার ভৌমিক, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আমির আলী, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত।

কুমিল্লা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শফিউল আহমেদ বাবুল, বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী কুমিল্লার কৃতি সন্তান আসিফ আকবর, কুমিল্লা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সৈয়দা বিলকিস আরা বেগম।

কুমিল্লা সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম টুটুল, সদর দক্ষিণ উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম সরোয়ার, ফয়জুন্নেচ্ছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু, ডা. তৃপ্তীশ চন্দ্র ঘোষ, মাতৃভান্ডারের মালিক অনির্বান সেন গুপ্ত ও প্রতিবন্ধী আবদুর রহমান।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা জেলা নির্বাচন কমিশনার মোঃ খোরশেদ আলম বলেন, কুমিল্লা সিটি কপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডের ২ লক্ষ ৭ হাজার ৫৫৬ জন ভোটারদের মাঝে স্মার্ট কার্ড (জাতীয় পরিচয় পত্র) বিতরণ করবো।

তিনি বলেন, আমাদের সব ধরণের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। ১৫ নভেম্বর শুরু হয়ে আগামী বছরের ১৫ মার্চ পরিচয়পত্র বিরণের কাজ সম্পূর্ণ হবে। একটি কার্ডের মেয়াদকাল থাকবে সর্বোচ্চ ১৫ বছর।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোঃ জাহাংগীর আলম। এতে সভাপতিত্ব করেন আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা কুমিল্লা অঞ্চল এস এম এজহারুল হক।

এদিকে প্রবাসীরা নিজে উপস্থিত হয়ে স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করতে হবে বলে নির্বাচন কমিশনার সূত্রে জানা গেছে।

কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ কামরুল হাসান জানান, প্রবাসীরা যে দিন যে ওয়ার্ডের যে স্থানে স্মার্ট কার্ড প্রদান করা হবে সেখানে উপস্থিত হয়ে প্রত্যেকে নিজ নিজ স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করবেন।

তিনি বলেন, স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করার সময় ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও চোখের আইরিশ নেওয়া হবে তাই একজনের কার্ড অন্যজন নেওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে প্রবাসীরা অন্য যে কোন সময় নিজ নিজ উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে স্মার্ট কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন।

উল্লেখ্য, একটি স্মার্ট কার্ডে তিন স্তরে ২৫টির মতো নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য রয়েছে। প্রথম স্তরের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য খালি চোখে দেখা যাবে, দ্বিতীয় স্তরের বৈশিষ্ট্যগুলো দেখার জন্য প্রয়োজন হবে বহনযোগ্য যন্ত্রাংশ এবং শেষ স্তরের জন্য কোনো ল্যাবরেটরিতে ফরেনসিক টেস্ট করার প্রয়োজন হবে।

এটিকে আন্তর্জাতিক মান নিশ্চিত করার জন্য আটটি আন্তর্জাতিক সনদপত্র ও মানপত্র নিশ্চিত করা হয়েছে। এটি মেশিন রিডেবল, যা কার্ড জালিয়াতির হাত থেকে বাড়তি নিরাপত্তা প্রদান করবে। পরপর দুবার হারালেই কার্ড সংগ্রহে ভোটারকে জরিমানা দিতে হবে দুই থেকে চার হাজার টাকা।