কুমিল্লার তামিমকে নিয়ে নতুন শঙ্কা

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ইনজুরি আক্রান্ত হন তামিম ইকবাল। উরুর মাংসপেশিতে ইনজুরির কারণে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরে এখনো মাঠে নামতে পারেননি দেশের সেরা মারমুখী এ ওপেনার। তবে তিনি এরই মধ্যে পেয়েছেন সুসংবাদ। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী জানিয়েছেন পুরনো ইনজুরি থেকে এখন মুক্ত তামিম।

বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে আজ চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে মাঠে নামতেও নেই কোনো সমস্যা। তবে নতুন একটি শঙ্কা তৈরি হয়েছে তাকে ঘিরে।

ব্যাট করতে গিয়ে হাতে কিছুটা ব্যথা অনুভব করছেন। যদি আজও ব্যথা অনুভব করেন তাহলে হয়তো এ ম্যাচেও তামিমকে মাঠে নামানোর ঝুঁকি নিবে না ভিক্টোরিয়ান্সের টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে কুমিল্লার পক্ষ থেকে তাকে নিয়ে অনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তামিমের ইনজুরি প্রসঙ্গে দেবাশিষ চৌধুরী বলেন, ‘ওকে আমরা দেখেছি, ওর যে ইনজুরি ছিল সেটি এখন ভালো হয়ে গেছে। বলতে পারেন ওর মাঠে খেলতে কোনো সমস্যা নেই পুরনো ইনজুরির কারণে। তবে নতুন একটি সমস্যা তৈরি হয়েছে তার। ব্যাট করতে গিয়ে কিছুটা ব্যথা অনুভব করছেন। যদি এ ব্যথা থেকে যায় তাহলে হয়তো ও নাও খেলতে পারে। তবে এ সিদ্ধান্ত নিবে কুমিল্লার টিম ম্যানেজমেন্ট ও তামিম নিজে। সে আজ খেলবে কিনা সেটির সিদ্ধান্ত এখন তাদের।’

আজ সন্ধ্যা ৬টায় মিরপুর শেরে বাংলা মাঠে মিসবাহ উল হকের ভাইকিংসের বিপক্ষে মাঠে নামতে পারে তামিম এমনটাই ধারণা সবার। তবে শেষ পর্যন্ত আজ তাকে মাঠে দেখা যাবে কিনা তা নিয়ে নিশ্চিত কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি। সিলেট পর্বে কুমিল্লা প্রথম ম্যাচ হার দিয়ে শুরু করে। তবে সেখানেই ভাইকিংসদের বিপক্ষে কুমিল্লা আসরের তাদের প্রথম জয় পায়। কিন্তু সেটি ছিল ভাইকিংসদের প্রথম ম্যাচ।

আজ আবারো দুই দলের দ্বিতীয় দেখায় ভাইকিংসের প্রতিশোধের মিশনই বলা চলে। অবশ্য ঢাকায় ফিরে কুমিল্লা জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে। রাজশাহীর কিংসের বিপক্ষে মিরপুর শেরেবাংলা মাঠে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচেও জয় পায় তামিম বিহীন কুমিল্লা। সেই ধারা অব্যাহত রাখতেই আজও তারা থাকবে মরিয়া। তবে তামিম থাকলে এ আত্মবিশ্বাস আরো বাড়বে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

ভাইকিংস ঘুরে দাঁড়াবে আশা সিকান্দার রাজার
ভাইকিংসরা তিন ম্যাচের ২টিতেই হেরেছে। কিন্তু তাই বলে যে মানসিকভাবে পিছিয়ে আছে তা নয়।

এ বিষয়ে দলের জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটার সিকান্দার রাজা ভাট দারুণ আত্মবিশ্বাসী। তিনি বলেন, ‘তিন ম্যাচের মধ্যে দুটি ম্যাচ হেরে যাওয়া মানে দল কঠিন অবস্থায় আছে তা নয়। আমরা পরের তিনটি ম্যাচ জিততেও পারি।’ সিলেটের তুলনাতে মিরপুর শেরে বাংলা মাঠে রান তেমন হচ্ছে না। কিন্তু শেষ ম্যাচে তাদের বিপক্ষে খুলনা টাইটান্স ১৭০ রান তুলেছিল স্কোর বোর্ডে। তাই রাজা এখানে রান তুলতে কঠিন হলেও বড় স্কোর করা সম্ভব বলেই মনে করেন রাজা। তিনি বলেন, ‘স্কোর যে খুব কম হচ্ছে না। ১৭০ রান কিন্তু কম নয়।’ তবে সিলেটের তুলনাতে এখানে উইকেট বেশ ভিন্ন ও এখানে টিকে থাকলেই রান সম্ভব বলে মনে করেন রাজা।

তিনি বলেন, ‘এটি ঠিক যে সিলেটের তুলনায় এখানে উইকেট বেশ ভিন্ন। সিলেটে আমার কাছে উইকেট ট্রু মনে হয়েছে। এখানে উইকেট একটু রাফ, শুষ্ক তাই বল খেলাও একটু কঠিন। তবে এখানে রান করা সম্ভব যদিও কেউ টিকে যেতে পারে।’