কুমিল্লায় পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে ছাত্রী অপহরন! পরে উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক ● মনোহরগঞ্জে পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে আয়েশা আক্তার (১৪) নামে এক জেএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার বিকেলে কুমিল্লা নগরীর অশোকতলা এলাকা থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাকে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায় স্থানীয়রা। সকাল পৌনে দশ টার দিকে মনোহরগঞ্জের পোমগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় জেএসসি কেন্দ্র থেকে ওই পরীক্ষার্থীকে অপহরণ করা হয়েছে বলে দাবী তার পরিবারের।

উপজেলার ঝলম দক্ষিণ ইউনিয়নের নরহরিপুর গ্রামের আহসান হাবীবের মেয়ে আয়েশা আক্তার পাশের মির্জাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেছে।

ওই ছাত্রীর পরিবার, বিদ্যালয় ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রবিবার সকালে গণিত পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য জেএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র পোমগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে পৌঁছে আয়েশা। সেখানে পৌঁছে নির্ধারিত আসনে বসে প্রবেশপত্রসহ পরীক্ষার সরঞ্জাম টেবিলে রাখে সে।

জেএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব ও পোমগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন বলেন, পরীক্ষা শুরুর ৫ মিনিট আগে কাগজ দেওয়ার সময় শিক্ষকরা দেখতে পান টেবিলে প্রবেশপত্রসহ পরীক্ষা দেওয়ার সকল সরঞ্জাম আছে কিন্তু মেয়েটি নেই। পরে বিষয়টি তার (ওই পরীক্ষার্থীর) বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়।

ওই পরীক্ষার্থীর মা খোদেজা বেগম কুমিল্লার বার্তা ডটকমকে বলেন, পরীক্ষা শুরুর ১৫ মিনিট আগে একটি মেয়ে এসে আয়েশাকে ডাক দিয়ে পরীক্ষার হল থেকে বের করে নেয়। এরপর থেকে তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। বিকেলে এক ব্যক্তির ফোনের মাধ্যমে জানায় কুমিল্লা শহরে অজ্ঞান অবস্থায় পাওয়া গেছে আয়েশাকে, তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। পরে জানতে পারলাম ওই মেয়েটি তাকে বিদ্যালয়ের গেইটে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে একটি মাইক্রোবাস নিয়ে কয়েক জন লোক দাঁড়িয়ে ছিল। তারা আমার মেয়েকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে অজ্ঞান করে ফেলে। এরপর তার আর কিছুই মনে নেই।

রবিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে মনোহরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সামছুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আর মেয়েটি এখন হাসপাতালে। সে স্বাভাবিক হলে তার কাছ থেকে বিস্তারিত জেনে এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।