কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● তিন বছর আগে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বিএনপির অবরোধ চলাকালে বাসে পেট্রোল বোমা হামলার মামলায় দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। সোমবার সকালে বেগম জিয়ার আইনজীবী এ তথ্য জানান। ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে বিএনপির অবরোধ চলাকালে উপজেলার জগমোহনপুরে কক্সবাজার থেকে ঢাকাগামী আইকন পরিবহনের একটি বাসে পেট্রোল বোমা হামলা হয়।

এতে বাসটিতে আগুন ধরে আটজন দগ্ধ হয়ে মারা যান। এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান হাওলাদার বিএনপি-জামায়াতের ৫৬ জনের নাম উল্লেখ করে, আরও ১৫ থেকে ২০ জনকে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি দেখিয়ে মামলা করেন।

মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করা হয়। তদন্ত শেষে চলতি বছরের ৬ মার্চ কুমিল্লার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে খালেদা জিয়াসহ মোট ৭৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।

এর আগে কুমিল্লার ৫ নম্বর আমলি আদালতের বিচারক জয়নব বেগম গত ২ জানুয়ারি মঙ্গলবার ওই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ৪৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে।

গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পর আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নাজমুস সাদাত সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ভোরে ২০ দলীয় জোটের অবরোধের সময় চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুরে একটি বাসে পেট্রোলবোমা ছুড়ে মারে দুর্বৃত্তরা। এতে আট যাত্রী দগ্ধ হয়ে মারা যান, আহত হন ২০ জন। এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান বাদী হয়ে ৭৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শীর্ষ স্থানীয় ছয় নেতাকে হুকুমের আসামি করা হয়। ৭৭ জন আসামির মধ্যে তিনজন মারা যান, পাঁচ জনকে চার্জশিটকে থেকে বাদ দেওয়া হয়। খালেদা জিয়াসহ অপর ৬৯ জনের বিরুদ্ধে কুমিল্লা আদালতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির পরিদর্শক ফিরোজ আহমেদ চার্জশিট দাখিল করেন। এ সময় আদালতে ২০ জন উপস্থিত ছিলেন। আদালত চার্জশিট গ্রহণ করে খালেদা জিয়াসহ অনুপস্থিত ৪৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এর আগে গেল বৃহস্পতিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হন খালেদা জিয়া।