কুমিল্লায় স্বামীর নির্যাতন সইতে না পেরে অাত্মহত্যা!

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● কুমিল্লায় স্বামীর নির্যাতনে সহ্য করতে না পেরে স্ত্রীর অাত্মহত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১০ জানুয়ারী বুধবার রাতে জেলার বুড়িচং উপজেলার বাকশীমুল গ্রামের উত্তর পাড়ার মহেদ মিয়ার ছেলে রুবেল মিয়া (২৮) তার স্ত্রী এক সন্তানের জননী আছমা অাক্তার (২২) কে শারীরিক নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করে ঘরের তীরের সাথে ওড়না দিয়ে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নিহত আছমা খাতুন একই উপজেলার জঙ্গলবাড়ীর মিলন মিয়ার এক মাত্র মেয়ে।

নিহত আছমা অাক্তার মা মোছেনা বেগম জানান, বিগত ৩ বছর পুর্বে তার মেয়ের সাথে বুড়িচং উপজেলার বাকশীমুল গ্রামের মহেদ মিয়া ছেলে রুবেল মিয়া (২৮) সামাজিক ভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। এক বছর পরে তাদের ঘরে মারজিয়া নামে একটি কণ্যা সন্তান জন্মগ্রহন করে। কণ্যা সন্তান জন্মের পর থেকে রুবেল মিয়া নানাহ ভাবে স্ত্রীর সাথে সংসারের বিভিন্ন ক্রটি ধরে পীড়াপিড়ি করতে থাকে।

তাদের অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যাওয়া আছমা অাক্তারকে বাপের বাড়িতে চলে যায়। পবর্তীতে বাকশীমুল ইউনিয়ন পরিষদে একটি সালিসী বৈঠকের মাধ্যমে রুবেল মিয়া পরিবার ও আছমা অাক্তারের পরিবারের মধ্যে সমঝোতা হয় এবং মেয়ের সুখ শান্তির জন্য বেকার রুবেল মিয়াকে পার্শ্ববর্তী গাজীপুর(কালিকাপুর) বাজারে একটি ওয়ার্কসপের দোকানের ব্যবস্থা করে দেয়। কিন্ত তারপরে তাদের মধ্যে সমঝোতা হয়নি চলছে অাগের মতই।

গত মোঙ্গলবার সকলে রুবেল মিয়া তার স্ত্রী অাছমা অাক্তারকে যৌতুকের টাকা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে ঝগড়া করে অাসছে বলে অভিযোগ করেন অাছমা অাক্তারের মা মোছেনা বেগম। বিভিন্ন বিরোধের জের ধরে স্বামী রুবেল মিয়া স্ত্রী আছমা খাতুনকে শারিরীকি নির্যাতন মাধ্যমে হত্যা করে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করছে বলে অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে রুবেল মিয়ার ছোট ভাই মুটো ফোনে জানান অামি অনেক দিন ধরে চট্রগ্রামে একটি কোম্পানিতে অাছি, তাই এই হত্যার পুরোপুরি ঘটনা অামি জানি না। তবে তাদের দুজনের মধ্যে ঝগড়া হতো বলে অামি শুনেছি। এগুলো কয়েকবার মিমাংশা হয়েছে। বুধবার সকালে যা শুনেছি ভাবি অাছমা অাক্তার ভাইয়ের সাথে ঝগড়া করে নিজেই সকলের অজান্তে ঘরের তীরের সাথে ঝুলিয়ে অাত্মহত্যা করেছে।

স্থানীয় সূত্রে আরোও জানান, সীমানা প্রাচীর দেওয়া বাড়ীর ভেতরে লোকজন প্রবেশ করতে না পারলেও মারধরের আছমা অাক্তারের সৌর চিৎকার শুনতে পায়েছে। সকালে আছমা অাক্তারের আত্মীয় স্বজন এসে থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আছমা অাক্তারেরর মরদেহ উদ্ধার করে এবং সুরত হাল রির্পোট তৈরী করে। এই বিষয়ে জিজ্ঞাসা বাদের জন্য আছমা অাক্তারের শাশুড়ি ফেলুয়া সুন্দরীকে আটক করেছে।

এই ব্যাপারে বুড়িচং থানার ওসি মনোজ কুমার দে জানান অামি বাড়ীতে ছুটিতে এসেছি এ ঘটনা বিস্তারিত তদন্ত মেজবা উদ্দিন ভূইয়া বলতে পারবে, ওসি তদন্ত জানান,এটি হত্যা, না-কি আত্মহত্যা-তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত কিছুই বলা যাবে না।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পক্ষ থেকে হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানা যায়।