তিতাসে ভাইস চেয়ারম্যানের উপর সন্ত্রাসী হামলা

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● কুমিল্লার তিতাস উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ আক্তার হোসেন নিজাম সিকদারের ছেলে মোঃ শাহিনুল ইসলাম সোহেল সিকদারের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ নেতৃবৃন্দ।

বুধবার সকাল ১১টায় কয়েক হাজার নেতা কর্মী সোহেল সিকদারের রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে হোমনা-গৌরীপুর সড়ক প্রদক্ষিন শেষে গাজীপুর নামক স্থানে টায়ারে আগুন দিয়ে পিকেটিন করে এবং উপস্থিত নেতাকর্মীরা সড়ক অবরোধ করে রাখে। এসময় সড়কের উত্তর-দক্ষিনে শত শত যানবাহন আটকা পরলে হাজার হাজার যাত্রী চরম র্দুভোগের শিকার হয়। প্রায় ৩ঘন্টা ব্যাপী চলে এ অবরোধ। দুপুর ১টায় তিতাস থানা পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে সোহেল সিদারের উপর হামলা কারীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে বিক্ষোভ কারীরা অরোধ তুলে নেয়। জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধা আনুমানিক ৬টায় সোহেল সিকদার গৌরীপুর বাজার থেকে একটি প্রাভেট কার যোগে ঢাকা মেট্রো-গ ৩২-৯২৩৩ তিতাসে আসার পথে উপজেলার জিয়ারকান্দি গোমতি সেতুর উত্তর পারে পৌছলে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা একদল সন্ত্রাসী প্রাইভেট কারটি লক্ষ করে প্রথমে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে গাড়ীর গতিরোধ করার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়ে রাস্তার দুই পাস থেকে প্রাভেটকারটি লক্ষ করে এলোপতারী গুলি বর্ষণ করলে কার টি ঝাঝরা হয়ে যায়। আল্লাহর অশেষ রহমতে চতুর চালকের দুরান্ত সাহসিকতায় দ্রুত গতিতে ঘটনা স্থল ত্যাগ করায় প্রাণে বেচে যায় সোহেল সিকদার। এঘটনায় সোহেল সিকদারের পিতা আক্তার হোসেন নিজাম সিকদার বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে এবং ৫/৬ জনকে অজ্ঞাত রেখে তিতাস থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছ্।ে এবিষয়ে ওসি নুরুল আলম টিপু জানায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল সিকদারের উপর সন্ত্রাসী হামলার খবর পেয়ে রাতেই ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছি এবং একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।