আজকের কুমিল্লা ও খুলনার সম্ভাব্য একাদশ

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● আসরের প্রথম ম্যাচে জয় তার পর হার। দুই হার-জিতের মিশ্র অভিজ্ঞতা নিয়ে বিপিএলের পঞ্চম আসর শুরু করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বিপিএলের তৃতীয় ও নিজেদের প্রথম আসরে দলটি চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। কিন্তু মুদ্রার অন্য দিকও দেখতে হয় চতুর্থ আসরে। শেষ চারেই জায়গা পায়নি তারা। তাই এবার লক্ষ্য ছিল শেষ চার যেন কোনো ভাবে হাতছাড়া না হয়।

মাশরাফি বিন মুর্তজার পরিবর্তে নেতৃত্ব তুলে দেয়া হয় তামিম ইকবালের হাতে। কিন্তু ইনজুরির কারণে দেশ সেরা ওপেনারকে শুরুতেই পায়নি দলটি। কিন্তু বিদেশি আফগান অধিনায়ক মোহাস্মদ নবীর নেতৃত্বে জয়ে ফেরে। এরপর টানা পাঁচ জয়। এরই মধ্যে মাঠে নামেন তামিমও। নিজেদের ৮ম ম্যাচে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে হারলেও ফের জয়ে ফেরে দল। তাও আসরের শক্তিশালী খুলনা টাইটান্সকে হারিয়ে। এরপর আরো দুই ম্যাচে টানা জিতে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে তালিকার শীর্ষে। এখনো তাদের হাতে বাকি দুটি ম্যাচ। কিন্তু কুমিল্লাকে শীর্ষ থেকে নামানোর কোনো সুযোগ নেই শেষ চার নিশ্চিত বাকি তিন দলের। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ঢাকা ডায়নামাইটস, তৃতীয় স্থানে থাকা খুলনা টাইটান্সের পয়েন্ট সমান ১৩ করে। চতুর্থ স্থানে থাকা রংপুরের পয়েন্ট ১২। তবে সবার বাকি ১টি করে ম্যাচ।

অন্যদিকে কুমিল্লার আছে এখনো দুটি ম্যাচে মাঠে নামার সুযোগ। তার মধ্যে আজ প্রতিপক্ষ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের খুলনা। শেষ দুটি ম্যাচ কুমিল্লার জন্য কোয়ালিফায়ের মহড়াই বলা যেতে পারে। হারলেও শীর্ষেই থাকবে।

তবে খুলনার জন্য একটি সুযোগ দ্বিতীয় স্থানে ওঠার। সেই সঙ্গে হারের প্রতিশোধ নেয়ার। আজ খুলনা জিতলে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে যাবে। তবে পরদিন রংপুরের বিপক্ষে ঢাকা জিতে গেলে ফের ঢাকাই উঠে আসবে দ্বিতীয় স্থানে। বলতে গেলে খুলনার জন্য আজ দুপুর ১টায় কুমিল্লার জয়রথ থামানোটাই চ্যালেঞ্জ। অন্যদিকে সন্ধ্যা ৬টায় এ আসরে নিয়ম রক্ষার ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাদ পড়া চিটাগাং ভাইকিংস ও রাজশাহী কিংস। অন্যদিকে ব্যাট হাতে ইমরুলের পারফরম্যান্স খুব খারাপ বলাও ঠিক হবে না। ১০ ম্যাচে ৩৭.৫৭ গড়ে করেছেন ২৬৩ রান। তবে তার ব্যাট থেকে আসেনি একটি ফিফটিও। সর্বোচ্চ ইনিংস খেলেছেন ৪৭ রানের। তাই ব্যাটিং নিয়ে আছে বাড়তি চিন্তাও।

নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে ইমরুল বলেন, ‘আমি আসলে উইকেটে গিয়ে আগে এডজাস্ট করার চেষ্টা করছি। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আসলে চাইলেও প্রত্যেকটা বল মারা যায় না। ওই জায়গায় আমি এডজাস্ট করে বল টু বল খেলার চেষ্টা করছি। তারপর যখন দেখি দলের দরকার তখন হিট করছি। এভাবেই পরিকল্পনা করে খেলছি।’

গেল আসরে প্লে-অফে প্রথম কোয়ালিফায়ারে খুলনাকে হারিয়ে সরাসরি ফাইনালে চলে গিয়েছিল ঢাকা ডায়নামাইটস। অন্যদিকে এলিমিনেটরে চিটাগাংকে বিদায় করে রাজশাহী। তবে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে খুলনাকে হারিয়ে রাজশাহী কিংস চলে যায় ফাইনালে। এবার শীর্ষে থাকা কুমিল্লার জন্য অপেক্ষা করছে দুটি সুযোগ। প্রথম কোয়ালিফায়ারে হারলেও ফাইনাল খেলতে তারা এলিমিনেটরে জয়ী দলের মুখোমুখি হতে পারবে। তবে এখন শেষ তিন দলের অবস্থান নিশ্চিত না হওয়াতে বলা যাচ্ছে না কুমিল্লার প্লে-অফে প্রতিপক্ষ কোন দল। ৮ই ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে প্লে-অফের লড়াই।

বিপিএলের প্রথম পর্বের শেষ দুই ম্যাচে কুমিল্লার হারানোর কিছু না থাকলেও পাওয়ার আছে অনেক কিছু। যেমন শেষ দুই ম্যাচে প্রাণ খুলে ব্যাটিং-বোলিং অনুশীলনটা সারতে পারবে। দলের দেশি-বিদেশিদের সুযোগ দিয়ে প্লে-অফের লড়াইয়ের জন্য নিজেদের সেরা একাশদটাও প্রস্তুত করে নিতে পারবে। যে কারণে গতকাল তারা অনুশীলনে এসেছে। যদিও দলের সব সদস্য আসেননি মাঠে।

তবে ফর্মে না থাকারাই দলের সঙ্গে অনুশীলন করে গেছেন অনেকক্ষণ। এর মধ্যে জাতীয় দলের ওপেনার ইমরুল কায়েস অন্যতম।

অনুশীলন শেষে দল ও নিজের লক্ষ্য নিয়ে কথা বলেন তিনি। আজকের ম্যাচটিকে আনুষ্ঠানিকতা রক্ষার কথা মানতে নারাজ তিনি। ইমরুল বলেন, ‘আমার মনে হয় প্রত্যেকটা ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ। একটা ম্যাচ যদি হেরে যাই তাহলে আত্মবিশ্বাস কমে যাবে। তাই ম্যাচে দলের সবাই ফোকাস থাকে এবং মাঠে জেতার জন্যই যায়। যে দুটি ম্যাচ বাকি আছে চেষ্টা করবো জিতে এই আত্মবিশ্বাস রেখেই সেমিফাইনালে যাওয়ার।’

দেখেনিন আজকের কুমিল্লা ও খুলনার সম্ভাব্য একাদশ–

কুমিল্লা একাদশ: তামিম ইকবাল, লিটন দাস, ইমরুল কায়েস, বাটলার, স্যামুয়েলস, শোয়েব মালিক, হাসান আলী, মেহেদী হাসান, জাদরান, সাইফ উদ্দীন, আল আমিন হোসেন।

খুলনা একাদশ: নাজমুল হোসেন শান্ত, রিলি রুশো, আফিফ হোসেন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নিকোলাস পুরান, আরিফুল হক, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, জফরা আর্চার, কাইল অ্যাবোট, শফিউল ইসলাম, আবু জায়েদ রাহি।