কুমিল্লায় ব্যাডমিন্টন খেলা নিয়ে যুবক খুন

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● কুমিল্লায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রুবেল মিয়া (২৮) নামে এক যুবক খুন হয়েছে। আহত হয়েছে আরও চারজন। শুক্রবার রাত এগারটার দিকে হোমনা উপজেলার দড়িচর গ্রামে এ খুনের ঘটনা ঘটে। নিহত রুবেল দড়িচর গ্রামের ব্যবসায়ী মো. ওয়ারিশ পুত্র। আহতরা হলো- মালেক আফসারী, একই গ্রামের আবদুল করিমের ছেলে মাসুদ রানা, মোস্তফা কামালের ছেলে মাহফুজ আহমেদ, আবদুল হামিদের ছেলে মনিরুজ্জামান।

আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত সাড়ে নয়টার দিকে রুবেল তার বন্ধুদের নিয়ে দড়িচর খেলার মাঠে ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্ট তৈরি করে খেলতে শুরু করে। এ সময় ওই গ্রামের মালেক আফসারীর ছেলে মুন্নাও খেলতে যায়। কে আগে আর কে পরে খেলবে এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও সংঘর্ষ বাধে। নিহত রুবেলের পিতা ওয়ারিশ মিয়ার অভিযোগ, মুন্না রুবেলকে বাধা দেয়ার সাথে সাথেই মুন্নার পিতা মালেক আফসারীর লোকজন দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

এ সময় মুন্না তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে রুবেলের পেটে আঘাত করলে সাথে সাথেই সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে পুলিশ আসার কথা শুনে এরা পালিয়ে যায়। এরপর তাকে মুমূর্ষ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে রাত সাড়ে এগারটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মো. বিল্লাল হোসেন জানান, ঘটনা ঘটার অনেক পর রোগীকে হাসপাতলে আনা হয়েছে। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর ঢাকায় রেফার করা হয়। ঢাকায় নেয়ার প্রস্তুতিকালে হাসপাতালেই তার মৃত্যু হয়।

হোমনা- মেঘনা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো. সাইফুর রহমান আজাদ জানান, ঘটনা শুনামাত্রই ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করি। এঘটনায় তাৎক্ষণিক চারজনকে আটক করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহতের পিতা ওয়ারিশ মিয়া বাদী হয়ে হোমনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।