কুমিল্লাকে সাপোর্ট করতে সানিয়া মির্জা এখন ঢাকায়

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে খেলতে পাকিস্তানি ক্রিকেটার শোয়েব মালিক ঢাকায় এসেছেন আগেই। ব্যাট ও বলে ভালো পারফরম্যান্স করছেন তিনি। এবার ঢাকায় এসেছেন ভারতীয় টেনিস তারকা ও শোয়েব মালিকের স্ত্রী সানিয়া মির্জা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে একটি পষ্টের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

দলটির ফেসবুক পেইজে শোয়েব মালিক ও সানিয়া মির্জার ছবি আপলোড করে লেখা হয়েছে, ‘শোয়েব মালিকের সহধর্মিনী, বিশ্ব টেনিসের অন্যতম তারকা সানিয়া মির্জা উইন অর উইন স্লোগানে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে সাপোর্ট করতে এখন ঢাকায়।’

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স এবার দারুণ ছন্দে রয়েছে। বিপিএলের চলমান আসরে এখন পর্যন্ত সব মিলিয়ে ৩৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর তাতে প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও খুলনা টাইটান্স। পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষস্থানীয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের সংগ্রহ ৯ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট। খুলনার সংগ্রহ ১০ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট। লিগ পর্বে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের আর তিনটি ম্যাচ বাকি রয়েছে।

এদিকে খুলনা টাইটান্স আগে প্লে-অফ নিশ্চিত করলেও ৩৪ তম ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসকে লজ্জাজনক ভাবে হারিয়ে মাহমুদ উল্লাহদের সঙ্গী হন তামিমরা।

১০ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট শেষ চারের সুযোগ এখন সরাসরি ঢাকা ও রংপুরের হাতে। দুই দলই আর একটি করে জয় পেলে নিশ্চিত হয়ে যাবে তাদের শেষ চারের লড়াই।

এদিকে প্লে-অফ নিশ্চিতের লড়াইয়ে ঢাকার সামনে আছে দুটি ম্যাচ। অর্থাৎ তাদের ১১তম ম্যাচ রাজশাহী কিংসের সঙ্গে। আর ১২তম ম্যাচটি রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে।

চলতি বিপিএলে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে এর আগে একবার মুখোমুখি হয়েছিল রাজশাহী কিংস। ম্যাচটিতে ৬৮ রানে জয় লাভ করে ঢাকা। কিন্তু সর্বশেষ রাজশাহী কিংসের পারফর্ম ও গেল বিপিএলের হিসেব মতে এভাবেই জিতে শেষ চারে যেতে অভ্যস্ত ড্যারেন স্যামি নেতৃত্বাধীন দলটি।

তাই বলা যায়, বিপিএলের ৩৬তম ম্যাচ অর্থাৎ ঢাকার পরবর্তী ম্যাচ হতে যাচ্ছে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ। আর ম্যাচটি জিতলে রাজশাহীর পয়েন্ট হয়ে যাবে ১০। আর ঢাকার থাকবে ১১। আর তাতেই বড় শঙ্কায় পড়তে হবে দলটিতে।

এবার আসি ঢাকার শেষ ম্যাচ অর্থাৎ ১২তম ম্যাচের দিকে। ম্যাচটিতে মুখোমুখি হবে ছন্দে থাকা রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে। চলতি বিপিএলে একবারের মুখোমুখিতে দারুণ জয় তুলে নিয়েছে রংপুর রাইডার্স। তাছাড়া শেষের দিকে বড়ই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে মাশরাফির নেতৃত্বাধীন দলটি।