কুমিল্লা প্রমান করল ক্রিকেট ‘ভদ্রলোকের খেলা’ (ভিডিও)

কুমিল্লার বার্তা ডেস্ক ● ১৭ ওভার শেষে ম্যাচের তখন ১৮তম ওভার চলছে। ওভারের প্রথম বলে ক্যারিবীয় ক্রিকেটার ডোয়াইন ব্রাভোর বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন স্বদেশী কাইরন পোলার্ড। এরপর ক্রিজে আসলেন ব্রাভোর আরেক স্বদেশী কেভন কুপার। ওভারের দ্বিতীয় বলে রান নিতে গিয়ে ধাক্কা লাগে ব্রাভো এবং কুপারের মধ্যে। বাঁধা পেয়ে থেমে যান দুজনই, ব্রাভো পড়ে যান মাটিতেই।

এতে নির্ধারিত গতিতে ক্রিজের সীমানায় ঢুকতে পারেননি কুপার। ততক্ষণে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ফিল্ডাররা উপরে ফেলেছেন স্ট্যাম্প।

স্বভাবতই উইকেট হারিয়ে ততক্ষণে সাজঘরের পথ ধরেছেন ঢাকা ডায়নামাইটস ব্যাটসম্যান কেভন কুপার। কিন্তু এমন সময়ে সবাইকে অবাক করে দিয়ে তার কাছে ফিরে গেলেন কুমিল্লার অধিপতি তামিম। তাকে অনুরোধ জানালেন ক্রিজে ফিরে আসার। কুপার অবশ্য কর্ণপাত না করে হাঁটছিলেন প্যাভিলিয়নের পথেই। তামিম আবারও তাকে ফিরে আসার অনুরোধ করে। অনুরোধ করেন ঢাকার কর্মকর্তারাও। শেষমেশ আবারও ক্রিজে ফিরে আসেন আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রান-আউট হওয়া কুপার।

ঢাকা ডায়নামাইটস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মধ্যকার ম্যাচ শেষে জয়ী অধিনায়ক কুমিল্লার অধিনায়ক তামিম ইকবালের এমন কাজ প্রশংসিত হচ্ছে বেশ। মাঠের বাইরে, এমনকি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেই সবাই স্তুতি গাইছেন তামিমের এমন স্পোর্টসম্যানশিপের।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, ‘কুমিল্লা দৃষ্টান্ত রেখেছে। কুপার আউট হয়েছিল আমরা চাইলে তাকে না ফেরালেও পারতাম। কিন্তু এই জায়গায় কুমিল্লার অধিনায়ক ভালো উদাহরণ রাখলেন।’

ঐ মুহূর্তে ম্যাচে সুবিধাজনক অবস্থানে ছিল কুমিল্লা। তবে কুমিল্লার অধিনায়কের ভাষ্য, ম্যাচে ব্যাকফুটে থাকলেও একই কাজ করতেন তিনি।

ড্যাশিং ওপেনার বলেন, ‘আমরা ক্রিকেটকে বলি ভদ্রলোকের খেলা। আমাকে তাই সৎ থাকতেই হবে। সেটিই চেষ্টা করেছি। আমার দল যদি হারার অবস্থানে থাকত, তাহলেও আমি একই কাজ করতাম।’

এদিকে খুলনা টাইটান্সের পর শেষ চার নিশ্চিত হলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের। বুধবার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসকে ১২ রানে হারিয়েছে তামিম ইকবালের দল। এই ম্যাচের মাধ্যমে শেষ হলো চট্টগ্রাম পর্ব। নয় ম্যাচ খেলে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলে সবার উপরে রয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

১৬৮ লক্ষ্যে খেলতে নেমে কুমিল্লা বোলারদের তোপে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় ঢাকা। তবে এক প্রান্তে আগলে রাখেন ওপেনার জো ডেনলি। ৩৯ বলে ছয়টি চার ও দুটি ছক্কায় ৪৯ করে তিনি সাইফুদ্দিনের বলে বোল্ড হন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কাইরন পোলার্ড ২৭ করে ডোয়েন ব্রাভোর কট এন্ড বোল্ডের শিকার হন।

মোসাদ্দেক হোসেন কিছুটা প্রতিরোধোর চেষ্টা করেন। তবে সাত বলে তিনটি চারের ১৭ করে তিনি রান আউট হন। সমান ১৭ রান করে করে সাইফের দ্বিতীয় শিকার হন জহুরুল ইসলাম। কুমিল্লা বোলারদের মধ্যে ব্রাভো চার ওভারে ৩১ রানে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন। দুটি উইকেট পান সাইফুদ্দিন। আর একটি তুলে নেন শোয়েব মালিক।

এই ম্যাচে জয় পেয়ে কুমিল্লা তাদের প্লে-অফ নিশ্চিত করল এবং পয়েন্টেও সবাইকে ছাড়িয়ে গেল।

এর আগে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের পক্ষে তামিম ইকবাল ৩৭, মারলন স্যামুয়েলস ৩৯ ও লিটন দাস ৩৪ রান করেন। ঢাকা ডায়নামাইটসের পক্ষে কেভন কুপার ৩টি ও সাকিব আল হাসান ২টি করে উইকেট নেন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের শুরুটা দারুণ ছিল। ওপেনিং জুটিতে ৬০ রানের পার্টনারশিপ গড়েন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। ইনিংসের অষ্টম ওভারে সাকিব আল হাসানের বলে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের হাতে ধরা পড়েন তামিম ইকবাল। ২৩ বল খেলে ৩৭ রান করেন তিনি।

ইনিংসের ১২তম ওভারে সাকিব আল হাসানের বলে স্ট্যাম্পিং হন লিটন দাস। ১৬তম ওভারে কেভন কুপারের বলে কাইরন পোলার্ডের হাতে ধরা পড়েন ইমরুল কায়েস। তিনি করেন ২৬ রান।

১৯তম ওভারে পরপর দুই বলে দুইটি উইকেট নেন কেভন কুপার। ওভারের দ্বিতীয় বলে জো ডেনলির হাতে ক্যাচ হন মারলন স্যামুয়েলস।

তৃতীয় বলে কাইরন পোলার্ডের হাতে ক্যাচ হন জস বাটলার। ২৭ বল খেলে ৩৯ রান করেন তিনি। ২০তম ওভারে রান আউট হন ডোয়াইন ব্রাভো।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), ইমরুল কায়েস, জস বাটলার, শোয়েব মালিক, মারলন স্যামুয়েলস, ডোয়াইন ব্রাভো, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, হাসান আলী, মেহেদী হাসান, আল-আমিন হোসেন।

ঢাকা ডায়নামাইটস একাদশ: এভিন লিউইস, সাদমান ইসলাম, জো ডেনলি, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), কাইরন পোলার্ড, জহুরুল ইসলাম (উইকেটরক্ষক), মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, সুনিল নারিন, আবু হায়দার রনি, কেভন কুপার, মোহাম্মদ শহীদ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ইনিংস: ১৬৭/৬ (২০ ওভার)
(তামিম ইকবাল ৩৭, লিটন দাস ৩৪, ইমরুল কায়েস ২৬, মারলন স্যামুয়েলস ৩৯, জস বাটলার ৪, শোয়েব মালিক ৯*, ডোয়াইন ব্রাভো ৬, হাসান আলী ৮*; আবু হায়দার রনি ০/৩৫, কেভন কুপার ৩/৪২, সুনিল নারিন ০/১৫, মোহাম্মদ শহীদ ০/২৬, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ০/২৪, সাকিব আল হাসান ২/২৩)।

ঢাকা ডায়নামাইটস ইনিংস: ১৫৫/৮ (২০ ওভার)
(এভিন লিউইস ৬, জো ডেনলি ৪৯, সাদমান ইসলাম ৯, সাকিব আল হাসান ৭, সুনিল নারিন ৫, কাইরন পোলার্ড ২৭, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১৭, জহুরুল ইসলাম ১৭, কেভন কুপার ৯*, আবু হায়দার রনি ৫*; মেহেদী হাসান ০/১৬, শোয়েব মালিক ১/২৬, হাসান আলী ০/৩৮, আল-আমিন হোসেন ০/২৬, ডোয়াইন ব্রাভো ৩/৩১, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ২/১৮)।

প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ: ডোয়াইন ব্রাভো (কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স)।